আজিজুল ইসলাম বারী,লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ লালমনিরহাট পুলিশ সুপার এসএম রশিদুল হক বলেছেন, ‘জনগণ সচেতন হলে যে কোন ধরনের গুজব প্রতিরোধ সম্ভব। সাম্প্রতিক সময়ে পদ্মা সেতু নির্মাণে মানুষের মাথা ও ছেলেধরা সন্দেহে অহেতুক মানুষকে পিটিয়ে মারার মত সমস্যা কেবলমাত্র সচেতনতার মাধ্যমেই দূর করা যাবে। গুজব প্রতিরোধ করতে নাগরিক সমাজকে গণসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে ও কাজ করতে হবে।’

শনিবার (২৭ জুলাই) বিকাল ৫টার দিকে লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলা হলরুমে গুজব প্রতিরোধ সমাবেশে তিনি এ কথা জানান।

তিনি বলেন, সমাজের একটি কুচক্রীমহল দেশের উন্নতি সহ্য করতে না পেরে গুজব ছড়িয়ে পদ্মা সেতুর উন্নয়নসহ সরকারের অর্জন বিনষ্ট করার অপচেষ্টা করছে। এ ব্যাপারে সমাজের সকল স্তরের মানুষকে সতর্ক থাকার জন্য আহবান জানান তিনি।

পুলিশ সুপার জানান, ছেলেধরা গুজবকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যেই লালমনিরহাট জেলার ৫টি উপজেলার জনসাধারণকে মাথা নিয়ে গুজব, ছেলেধরা আতঙ্ক ও গণপিটুনি প্রতিরোধে সচেতন করতে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাটবাজারসহ পাড়া মহল্লায় জেলা পুলিশের উদ্যোগে সভা, সমাবেশ ও মাইকিং চলছে ।

এছাড়াও জেলার থানাগুলোতে পৃথকভাবে পুলিশের টহল জোরদার, বিদ্যালয়ের সামনে পাহারা জোরদার, সরকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও অভিভাবকদের নিয়ে সচেতনতা সভা করা হচ্ছে।

পুলিশ সুপার এসএম রশিদুল হক জেলাবাসীর উদ্দেশ্যে বলেন, ছেলেধরা বা গলাকাটা সন্দেহে আপনারা আইন নিজেদের হাতে তুলে নিবেন না। এলাকায় সন্দেহজনক কিংবা অপরিচিত কাউকে দেখলে গণপিটুনি না দিয়ে পুলিশকে জানান। সমাজের প্রতি সবারই দায়িত্ব ও কর্তব্য রয়েছে। সেই কর্তব্য বোধের দায় থেকে তিনি সকলকে গুজব রোধে সকলকে এগিয়ে আসার আহবান জানান।

মতবিনিময় সভায়, হাতীবান্ধা থানার ওসি ওমর ফারুক, হাতীবান্ধা উপজেলা চেয়ারম্যান মশিউর রহমান মামুন, ইউএনও সামিউল আমিন, সহকারী পুলিশ সুপার তাপস কুমার সরকার, ভাইস চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মিরু, জেলা কমিউনিটি পুলিশিং কমিটি’র সম্পাদক মিজানুর রহমান,হাতীবান্ধা উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিং কমিটি’র সভাপতি নুরুজ্জামান ও সিঙ্গিমারী ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মনোয়ার হোসেন দুলুসহ জেলার কর্মকর্তা ও সংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য