দিনাজপর সংবাদাতাঃ বিরামপুরে শহরের আনাসা হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে চিকিৎসা অবহেলায় রুগি মৃত্যুর ঘটনায় বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) বিরামপুর থানায় মামলা হয়েছে। পুলিশ হাসপাতাল থেকে প্রধান আসামী এক নারীকে গ্রেফতার ও নিরাপত্তা সুরক্ষায় উপজেলা প্রশাসন ঐ হাসপাতালের কার্যক্রম সাময়িক বন্ধ রাখার নিদেশনা দিয়েছেন।

তবে মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশনার কারনে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া যায়নি, মন্তব্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট তৌহিদুর রহমানের ।

মামলা সূত্রে প্রকাশ, বিরামপুর পৌর এলাকার বিছকিনি গ্রামের আবু তালেবের স্ত্রী রেশমা খাতুন বিজলী (৩৬) জরায়ুর সমস্যায় ভুগছিলেন। বুধবার স্বামী তাকে ঐ হাসপাতালে ভর্তি করান। বিকেলে অপারেশন থিয়েটারে রেশমার মৃত্যু ঘটে। এ ঘটনায় রুগির স্বজনরা চিকিৎসা কাজে অবহেলার অভিযোগ তুলে বাক-বিতন্ডা করলে এলাকাবাসী সমবেত হয়ে হাসপাতাল অবরোধ করে।

এসময় পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। নিহত রেশমার চাচা রমজান আলী বাদি হয়ে চিকিৎসা অবহেলার অভিযোগে হাসপাতালে কর্মরত ফারজানা ইয়াসমিন জলি’কে প্রধান আসামীসহ ও চার জনের নাম উল্লেখ এবং ২/৩জনকে অজ্ঞাত আসামী করে থানায় মামলা করেছেন।

থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মনিরুজ্জামান জানান, আসামী ফারজানা ইয়াসমিন জলি’কে গ্রেফতার ও লাশ ময়না তদন্তের জন্য দিনাজপুর মর্গে পাঠানো হয়েছে। পুলিশী কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। আটক ফারজানার নামে হাসপাতালে বিশাল বোড প্রদশ্রিত হলেও কি পদে দায়িত্বরত ছিলেন পুলিশ তা নিশ্চিত করতে পারেননি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট তৌহিদুর রহমান জানান, সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে হাসপাতালের কাগজপত্র কেউ দেখাতে না পারায় সাময়িক ভাবে ঐ হাসপাতাল বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশনার কারনে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা সম্ভব হয়নি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য