দিনাজপুর সংবাদদাতাঃ দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে শনিবার প্রতিবন্ধী শিশু ধর্ষণ ও সালিশের নামে ঘটনা ধামাচাপা প্রদানকারিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং ধর্ষকের মৃত্যুর দাবিতে ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।

উপজেলা শাখা সচেতন নাগরিক সমাজের (সনাস) উদ্যোগে স্থানীয় নিমতলামোড়স্থে সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত ঘন্টাব্যাপী মানবন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়।

সচেতন নাগরিক সমাজের (সনাস) এর সভাপতি আরিফ খান জয়ের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, সচেতন নাগরিক সমাজের ( সনাক) এর সাধারন সম্পাদক হামিদুল ইসলাম, সহ-সভাপতি ইমাম রেজা, সমাজ কর্মি মাহবুব এ হাফিজ ড্যানি, সাংবাদিক মোঃ রজব আলী, ফুলবাড়ী থানা প্রেসক্লাবের সভাপতি আফজাল হোসেন,সাংবাদিক মেহেদী হাছান উজ্জল, সাংবাদিক প্লাবন গুপ্ত শুভ প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, চতুর্থ শ্রেণির বুদ্ধি প্রতিবন্ধী শিশুকে ধর্ষণ ও সালিশের নামে ধামাচাপা দেওয়া ও সালিশে ধর্ষিতার পিতাকে অর্ধেক টাকা দিয়ে বাকী টাকা ভাগবাটোয়ারার ঘটনার সাথে জড়িত কথিত দুই সাংবাদিকসহ সালিশকারিদের দ্রুত আইনের আওতায় আনাসহ ধর্ষকের মৃত্যুদ-ের দাবি জানান। তারা আরো বলেন, কথিত দুই সাংবাদিক এখন পর্যন্ত ধরা ছোঁয়ার বাহিরেই রয়েছে। তাদেরকে দ্রুত আইনের আওতায় এনে সাংবাদিকতার নামে অপসাংবাদিকতা দুরকরণের দাবি জানান।

উল্লেখ্য, গত ৩ জুলাই উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের রামভদ্রপুর আবাসনের বাসিন্দার চতুর্থ শ্রেণির বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী শিশুকন্যাকে একই আবাসনের বাসিন্দা মেহেদুল মন্ডল (৪৭) ধর্ষণ করে। পরে ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সাইফুল ইসলাম বাবলু, গ্রাম পুলিশ আব্বাস আলী, আবাসনের বাসিন্দা সুজন মোল্লা ও কথিত দুই সাংবাদিকসহ কয়েক ব্যক্তি সালিশের নামে ঘটনাটি ধামাপাচা দিতে ১৪ হাজার টাকায় আপোষ রফা করে, ধর্ষিতা শিশুর পিতা ৯ হাজার টাকা এবং বাকী ৫হাজার টাকা সালিশকারিরা নিজেরাই ভাগবাটোয়ারা করে নেন।

গত বুধবার ১০ জুলাই, গত বৃহস্পতিবার ১১ জুলাই,বিভিন্ন স্থানীয় ও জাতীয় পত্রিকায় এ সংক্রান্ত পৃথক দুইটি সংবাদ প্রকাশ হলে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন নড়েচড়ে বসে এবং ওইদিনই ধর্ষক মেহেদুল মন্ডলসহ সালিককারিদের অন্যতম সুজন মোল্লাকে আটক করে। একইদিন ধর্ষিতা শিশুর মা বাদী হয়ে ৭জনকে আসামী করে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। এদিকে এঘটনাটি পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর গত ১৪ জুলাই এ বিষয়ে কি ব্যাবস্থা নিয়েছেন ৭দিনের মধ্যে জানতে চেয়ে,দিনাজপুর পুলিশ সুপারসহ ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও ফুলবাড়ী থানার অফিসার্স এর নিকট মাহামান্য হাইকোর্ট একটি রুল জারী করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য