নতুন করে আরেকটি বেড়িবাধঁ ভেঙ্গে যাওয়ায় কুড়িগ্রামের রাজিবপুর উপজেলার বানভাসি মানুষ আরও চরম দুর্ভোগের স্বীকার হয়েছে।

ইউপি চেয়ারম্যান কামরুল আলম বাদল জানান,বৃহস্পতিবার ভোরে শিবেরডাঙ্গী বালিয়ামারী ক্ষুদ্র পানি সম্পদ বিভাগের বেড়িবাধঁ ভেঙ্গে নতুন করে আরও ৫টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

ওই গ্রাম গুলোতে অনেক ভানবাসি মানুষ তাদের গবাদী পশু ও প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে আত্মীয়বাড়ি ও রাস্তায় অবস্থান করত। কিন্তু বেড়িবাধটি ভেঙ্গে যাওয়ায় বানভাসিরা নতুন করে দুর্ভোগের স্বীকার হতে হল।

এদিকে রৌমারী -শেরপুর মহাসড়কের বেশ কয়েক জায়গায় প্রবল বেগে স্রোত পড়ায় এবং কয়েক জায়গায় ভেঙ্গে যাওযায় রৌমারী থেকে গত ৩ দিনে কোন বাস ঢাকার উদ্দেশ্য যেতে পারিনি।

রৌমার-রাাজিবপুরের হজ্জ যাত্রীগণ অতিকষ্টে নৌকা যোগে জামালপুর ও কামালপুর থেকে ঢাকাতে যাচ্ছেন। অপরদিকে রাস্তা-ঘাটের সমস্যা দেখিয়ে ব্যবসায়ীরা নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস পত্রের দাম হাকিয়ে চড়া মূল্যে বিক্রি করছেন।

কোদালকাটি ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবীর ছক্কু জানান,তার এলাকায় কোথায় শুকনো না থাকায় চর সাজাই গ্রামের এন্তাজ আলী (১৮) ও তেরো রশি পাড়ার আবদুল হান্নান (৩০)এর মৃত্যু হলে তাদের মরদেহ রৌমারী উপজেলার চর লাঠিয়ালডাঙ্গা কবর স্থানে দাফন করা হয়।

রাজিবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: মেহেদী হাসান জানান,বন্যার্তদের মাঝে গত ৩ দিনে ৪৪ মে.টন চাল ৯০ প্যাকেট মুকনা খাবার বিতরণ করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য