ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশে তিন জনের গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। অনন্তপুরের এই হত্যাকাণ্ড ‘নরবলি’র উদ্দেশ্যে করা হয়ে থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা গেছে।

সোমবার অন্ধ্রপ্রদেশের অনন্তপুরের একটি শিবমন্দির চত্বর থেকে দুই নারীসহ তিন জনের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। সকালে মন্দিরে পূজা করতে গিয়ে স্থানীয়রা মরদেহগুলো দেখতে পান। শিবলিঙ্গের সামনেই পুরোহিতসহ তিন জনের মরদেহ পড়ে ছিল। খবর পেয়ে স্থানীয় পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। তারা জানায়, তিন জনকে একই কায়দায় গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে।

জানা গেছে, খুন হওয়াদের মধ্যে একজন মন্দিরের পুরোহিত। তার নাম শিবরামি রেড্ডি (৭৫), তার বোন হনুমাম্মা (৭০) ও সত্যলক্ষ্মী (৭১)।

তদন্তকারী পুলিশ পরিদর্শকের ধারণা, অন্ধবিশ্বাসের বলি হতে পারেন ওই তিন জন। কারণ, খুনের পর শিবলিঙ্গের গায়ে ওই তিন জনের রক্ত ছিটানো হয়েছে। অনন্তপুরের পুলিশ সুপার বি সত্যবাবু জানান, ওই তিন জনকে গলা কেটে খুনের পর সেই রক্ত ঢেলে শিবের পূজা করা হয়েছে বলে মনে হচ্ছে।

এই তিন খুনের রহস্য খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। তিন জন একই পরিবারের সদস্য হওয়ায় সম্পত্তিগত কিংবা পারিবারিক শত্রুতার জেরেও তারা খুন হয়ে থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এসপি সত্য ইয়াসুবাবু বলেন, এই ঘটনায় চার-পাঁচ জন জড়িত থাকতে পারে। তারা সম্পদের জন্যও হামলা চালাতে পারে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য