সংবাদ সম্মেলনঃ সন্ত্রাসীদের হামলায় নিহত স্বামী শাহাদত হত্যার মামলা গ্রহন, আসামীদের গ্রেফতার ও দ্রুত বিচার আইনে বিচার দাবী জানিয়ে দিনাজপুর প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করেছে স্ত্রী তানিয়া জাহান তৃষ্ণা।

গতকাল সোমবার দুপুরে দিনাজপুর প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সদর উপজেলার শশরা ইউনিয়নের বৈরাগীদিঘী গ্রামের মরহুম শাহাদত হোসেনের স্ত্রী তানিয়া জাহান তৃষ্ণা।

তিনি লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করেন, হত্যা মামলার অভিযোগ করেও চাঁদাবাজ-সন্ত্রাসী আসামিরা গ্রেফতার হয়নি। কোতোয়ালি থানা পুলিশ অজ্ঞাত কারণে আমার স্বামীর হত্যার মামলা গ্রহনে তালবাহানা করছে।

তিনি হতাশা প্রকাশ করে জানান, ৫নং শশরা ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন আমার স্বামী মো: শাহাদত হোসেন। সরকারী দলের তৃনমুল পর্যায়ের একজন নেতাকে সন্ত্রাসীরা পিটিয়ে মেরে ফেললো অথচ এখন পর্যন্ত মামলা গ্রহন কিংবা আসামীদের গ্রেফতার করলো না পুলিশ।

ঘটনার বিবরন উল্লেখ করে তিনি বলেন, মরহুম শাহাদত হোসেন দিনাজপুর এম আবদুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনের সড়কের উত্তর দিকে হিউম্যান ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের মার্কেটিং সহকারী পদে কর্মরত ছিলেন। চাকুরীকালিন সময়ে মাঝে মধ্যেই কয়েকজন বিভিন্ন সময়ে তার নিকট ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করে আসছিলো।

শেষ পর্যন্ত চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে গত ৯ জুলাই সন্ধ্যা ৬টায় স্থানীয় এম আবদুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এলাকায় মেডিকেল ফার্মা ফার্ম্মেসীর সামনে আমার স্বামী মরহুম শাহাদত হোসেনকে নির্দয়ভাবে লোহার রড দ্বারা শরীরের বিভিন্ন অংশে এলোপাতারী পিটিয়ে মারাত্বক আহত করে। পেটানো দেখে স্থানীয়রা চিৎকার করলে আশপাশের দোকানদার ও পথচারী এগিয়ে এলে সন্ত্রাসীরা মৃত ভেবে রাস্তায় ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। তখন সংজ্ঞাহীন অবস্থায় স্থানীয়রা আমার স্বামীকে উদ্ধার করে তৎক্ষনাত দিনাজপুর এম আবদুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করালে কতর্ব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষনা করেন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন নিহত শাহাদতের পিতা জহুরুল ইসলাম, মাতা সামশুন নাহার, শশুড় নুর এ জামান, শাশুড়ি তহমিনা বেগম এবং সাড়ে ৪ বছরের কন্যা মোছা: তমালিক, হুসনেয়ারা বেগম ও মীর হোসেন প্রমুখ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য