দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠান হেমায়েত আলী পাবলিক লাইব্রের’র প্রতিষ্ঠাতা বিশিষ্ট সমাজ সেবক ও শিক্ষাবিদ আলহাজ্ব মোঃ হেমায়েত আলীর ৫০তম মৃত্যু বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে লাইব্রেরি’র কনফারেন্স রুমে ২দিন ব্যাপী সেমিনার, আলোচনা সভা ও মিলাদ এবং দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

প্রথম দিন হেমায়েত আলীর জীবন ও কর্ম শীর্ষক সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, হেমায়েত আলী পাবলিক লাইব্রেরির সাধারন সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ সাইফুদ্দিন আকতার। মুল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন, দিনাজপুর সরকারি কলেজের ইতিহাস বিভাগের সহকারী অধ্যাপক, গবেষক ও কথা সাহিত্যিক আলী ছায়েদ।

আলোচক্য হিসেবে আলোচনা করেন, দিনাজপুর নাগরিক উদ্দোগ কমিটির সভাপতি প্রবীন রাজনীতিবিদ আবুল কালাম আজাদ, গবেষক ও কথা সাহিত্যিক মোঃ মোজাম্মেল হক, মোঃ হেমায়েত আলীর পুত্র সাবেক উপ-সচিব ও লেখক মোঃ জুলফিকার আলী, কমিটির সহ-সভাপতি এ্যাড. মেহেরুল ইসলাম।

মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে এবং সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন নির্বাহী কমিটির এসএম ফজলুল করিম দেওয়ান, মোঃ আতিকুর রহমান নিউ, ড. আব্দুস ছালাম, মোঃ ইস্তিফকুল আলম চৌধুরী প্রিন্সসহ সাধারন সদস্যবৃন্দ, এলাকাবাসী ও সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ।

স্বাগত বক্তব্য রাখতে গিয়ে কমিটির সাধারন সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধা সাইফুদ্দিন আকতার বলেন, তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী খাজা নাজিমুদ্দিন এর নাম করণে এই লাইব্রেরি’র নাম করণ করা হয়েছিল। এখন দেশ স্বাধীন হয়েছে। আমরা পাকিস্তানি মানসিকতার কোন মানুষের নামে বাংলাদেশের কোন প্রতিষ্ঠান থাকতে দেবনা।

তাই এবারের কমিটি সেই নাম পরিবর্তন করে লাইব্রেরি’র প্রতিষ্ঠাতা বিশিষ্টি সমাজ সেবক ও শিক্ষাবিদ আলহাজ্ব মোহাম্মদ হেমায়েত আলীর নামে হেমায়েত আলী পাবলিক লাইব্রেরির নাম করণ করাতে স্বাধীনতার ৪৮ বছর পর হলেও প্রকৃত প্রতিষ্ঠাতার নামে এই লাইব্রেরির নাম করণ করা হয়েছে।

দিনাজপুরবাসীর কাছে আমাদের আবেদন এই লাইব্রেরির দেশে-বিদেশে যে ঐতিহ্য রয়েছে তা সুনামের সাথে আমরা ধরে রাখবো এবং পরিচালনা করবো।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য