আজিজুল ইসলাম বারী,লালমনিরহাটঃ লালমনিরহাটের পাটগ্রামে ঝড়ে ৩ ইউনিয়নের ৫ শতাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। এ ঘটনায় আলেজা বেগম (৫০) নামে এক নারী নিহত হয়েছেন।

শনিবার রাত ১২ টার দিকে জেলার পাটগ্রাম উপজেলায় ২০ থেকে ২৫ মিনিট স্থায়ী টর্নেডো হয়। টর্নেডোর আঘাতে তিন ইউনিয়নে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বলে জানান পাটগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আব্দুল করিম।

নিহত আলেজা বেগম উপজেলার শ্রীরামপুর ইউনিয়নের শৌলমারী পাড়ার ইব্রাহিম হোসেন বাউরার স্ত্রী।

স্থানীয়রা জানান, ২০-২৫ মিনিট স্থায়ী এই ঝড়ে পাটগ্রাম, বুড়িমারী ও শ্রীরামপুর ইউনিয়নের অনেক বাড়িঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। অসংখ্য গাছপালা উপড়ে গেছে। ঝড়ে মানুষের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ঘরবাড়ি ভেঙে যাওয়ায় অনেকেই খোলা আকাশের নিচে আছে।

পাটগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আব্দুল করিম সাত্তার বলেন, ‘শনিবার রাতে ভারতীয় সীমান্ত দিয়ে আসা টর্নেডোটি পাটগ্রাম, বুড়িমারী ও শ্রীরামপুর ইউনিয়নে আঘাত হানার পর আবারও ভারতের দিকে চলে যায়।

এ সময় শ্রীরামপুরে একটি ঘরের ওপর গাছ ভেঙে পড়লে আলেজা বেগম নামে এক নারী নিহত ও তার দুই নাতি আহত হয়। তিনি আরও জানান, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের সঙ্গে নিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরির্দশন করছি। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসন ও স্থানীয় সংসদ সদস্যকে জানানো হয়েছে।

লালমনিরহাটের জেলা প্রশাসকের দায়িত্বে থাকা এডিসি (রাজস্ব) আহসান হাবীব বলেন, ‘পাটগ্রামে টর্নেডোর আঘাতে কী পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে, তা নির্ণয়ের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আমরা যথাসাধ্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার চেষ্টা করছি।’

লালমনিরহাট-১ আসনের (পাটগ্রাম-হাতীবান্ধা) সংসদ সদস্য মোতাহার হোসেন বলেন, ‘প্রশাসনকে ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা তৈরির নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আমি নিজেও সরেজমিন ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যাবো।’

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য