গরমকালে অতিরিক্ত উষ্ণতার পাশাপাশি থাকে অস্বস্তিকর আর্দ্রতা। ফলে ঘাম হয় বেশি। আর সেই ঘাম বসতে পারে আপনার চুলের গোড়াতেও। এক টানা ঘামে ভিজে চুলের গোড়া হয়ে পরে দুর্বল। ফলে সহজেই চুল উঠতে শুরু করে।

এ ছাড়াও ঘাম ও মাথার ত্বক বা মাথার ওপরের অংশের স্বাভাবিক তেলের ফলে চুলে তৈলাক্ত ভাব এসে যায়। এতে চুলে জট পড়ে। ফলে চুল আঁচড়াতে গেলেই চিরুনিতে চুল জড়িয়ে যায়। এমনকি চুলের ফুরফুরে ভাবও নষ্ট হয়ে যায়।তাই আপনার সুন্দর চুলের বারোটা বাজার আগেই তার যত্ন নিন।

চলুন এবার জেনে নেওয়া যাক চুল পড়া রোধে ঘরোয়া কিছু সমাধান সম্পর্কে-

১) একদিন অন্তর অন্তর অবশ্যই শ্যাম্পু করার চেষ্টা করুন। শ্যাম্পু করার সময়ে আঙুল দিয়ে হালকা হাতে মাথায় ম্যাসাজ করুন। এ ছাড়া শ্যাম্পুর পর ব্যবহার করুন ভালো কোনো কন্ডিশনার।

২) একটি পাত্রে তিন-চার চামচ পাতি লেবুর রস নিন। এতে অল্প পরিমাণে পানি মিশিয়ে চুলের গোড়ায় আলতো হাতে ম্যাসাজ করুন। এরপর ৩০ মিনিট রাখুন।পরে তিন-চার চামচ নারিকেলের তেল বা আমন্ড তেল মাথায় ম্যাসাজ করুন। ৩০ মিনিট পর শ্যাম্পু করে ধুয়ে নিন। এভাবে সপ্তাহে দুই দিন গোসল করার আগে এটি করার চেষ্টা করুন। চুলের গোড়া মজবুত হবে।

৩) অ্যালোভেরার রস যেকোনো ধরনের চুলের জন্য বেশ উপকারী। সপ্তাহে এক-দুই দিন গোসলের এক ঘণ্টা আগে মাথার ওপরের অংশে অ্যালোভেরার রস লাগান। এক মাস এভাবে করলেই উপকার পাবেন।

৪) চুলে মেহেদি বা কলপ ব্যবহার কম করাই ভালো। একান্তই করতে হলে নামী কোম্পানির ভালো মানের কলপ ব্যবহার করুন। তবে কলপ ব্যবহারের পর অবশ্যই চুলে ভালো করে শ্যাম্পু করুন।

৫) বাড়ির বাইরে বের হওয়ার সময় অবশ্যই ছাতা ব্যবহার করুন। টুপি পরলে পরিষ্কার এবং সঠিক মাপের টুপি পরুন।

৬) চুলে জেল, ওয়াক্স, হেয়ার স্প্রে-এর ব্যবহার এড়িয়ে চলুন।তবে এগুলো ব্যবহার করলেও বাড়ি ফিরে ভালো করে শ্যাম্পু করে চুল ধুয়ে নিন।

৭) হেয়ার স্পা করা খুবই উপকারী চুলের পক্ষে। মাসে এক-দুবার হেয়ার স্পা করতে পারলে চুল ভালো থাকে।

৮) রোজ প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন। এ ছাড়া খাবারের পাতে রাখুন প্রচুর পরিমাণ শাক-সবজি ও ফল। নিয়মিত খান কাঁচা আমন্ড। টাটকা ছোট মাছ বেশি করে খান। রোজ সকালে খান এক চামচ মধু।

৯) গোসল করে বেরিয়েই জোরে জোরে চুল মুছবেন না। এতে চুলের গোড়া দুর্বল হয়ে যাবে। আগে চুলে তোয়ালে জড়িয়ে শুকিয়ে নিন।

১০) চুলে হেয়ার ড্রায়ার বা হেয়ার স্ট্রেটনার ব্যবহার না করাই ভালো। এতে চুল সাময়িকভাবে দেখতে ভালো লাগলেও পরে ক্ষতি হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য