তিউনিসিয়ার উপকূলে ডুবন্ত নৌকা থেকে ৩৭ বাংলাদেশিসহ ৭১ জন অভিবাসন প্রত্যাশীকে উদ্ধার করেছে সেদেশের কর্তৃপক্ষ। তিউনিসিয়ার ন্যাশনাল গার্ড সূত্রে এএফপি তাদের উদ্ধার হওয়ার খবর দিয়েছ। ওই ফরাসি বার্তা সংস্থা জানিয়েছে, লিবিয়া থেকে ইতালি যাওয়ার পথে সোমবার (৮ জুলাই) ওই অভিবাসন প্রত্যাশীদের উদ্ধার করা হয়।

তিউনিসিয়ার ন্যাশনাল গার্ডের মুখপাত্র হুসেম ইদ্দিন জেবালি জানান, নৌকাটি লিবিয়ার জুয়ারা উপকূল থেকে রওনা করেছিল। তিউনিসিয়ার কেরকেন্নাহ দ্বীপপুঞ্জের কাছে পৌঁছানোর পর নৌকাটিতে পানি ঢুকতে শুরু করে। সোমবার রাতে অভিযান চালিয়ে ৭১ আরোহীকে তীরে ফিরিয়ে নিতে সক্ষম হন উদ্ধারকারীরা।

জেবেলি জানান, এর মধ্যে ৩৭ জন বাংলাদেশি, ৮ জন মরোক্কান, ৮ জন মিসরীয়, ৭ জন আলজেরিয়ান, চারজন সুদানি, দুইজন শাদ নাগরিক ও একজন তিউনিসীয় নাগরিক রয়েছেন। তারা সবাই নিরাপদ ও ভালো আছেন।

আফ্রিকার বিভিন্ন দেশ থেকে ইউরোপে পাড়ি দেওয়ার ক্ষেত্রে অভিবাসনপ্রত্যাশীরা প্রধান পথ হিসেবে লিবিয়াকেই ব্যবহার করে থাকেন। গত কয়েক সপ্তাহে তিউনিসিয়া উপকূল থেকে বেশ ক’জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। তারা লিবিয়া থেকে ইতালি যাচ্ছিলেন।

গত সপ্তাহে তিউনিসিয়ার উপকূলে ৮৬ জন অভিবাসনপ্রত্যাশীসহ একটি নৌকা ডুবে যায়। তিউনিসিয়া কর্তৃপক্ষ অন্তত ১৬ জনের লাশ উদ্ধার করেছে। এদের মধ্যে এক শিশু ও এক অন্তঃসত্ত্বা নারীও ছিলেন। ওই নৌকায় থাকা অনেকে এখনও নিখোঁজ রয়েছেন।

উন্নত জীবনের আশায় ইউরোপে পাড়ি জমাতে যাওয়া আফ্রিকান অভিবাসনপ্রত্যাশীরা লিবিয়ার পশ্চিম উপকূলকে ব্যবহার করে থাকে। মানবপাচারকারীদের টাকা দিয়ে লিবিয়া উপকূল থেকে নৌকায় করে রওনা করে তারা।

তবে পাচারকারী চক্রকে ভেঙে দিতে এবং লিবীয় কোস্টগার্ডকে সহায়তার অংশ হিসেবে ইতালির নেতৃত্বে অভিযান চালানো হয়ে থাকে। এমন অবস্থায় মানবপাচারকারীদের খপ্পরে পড়া এসব অভিবাসীর অনেকের জীবন মাঝ সমুদ্রেই থমকে যায়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য