চার দিন ধরে চলা বৃষ্টিপাতে ভারতের বাণিজ্যিক রাজধানী মুম্বাই ও এর আশপাশের জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।

এতে ট্রেন চলাচলে বিঘ্ন ঘটেছে, শহরজুড়ে ট্র্যাফিক জ্যাম তৈরি হয়েছে এবং নিচু এলাকাগুলো তলিয়ে গেছে বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

মৌসুমি বায়ু জোরদার হওয়ার পর গত চারদিন ধরে ওই এলাকাজুড়ে বৃষ্টিপাত হচ্ছে। রোববার রাতভর ভারী বৃষ্টিপাতের পর সোমবার সকালেও ভারী বৃষ্টিপাত হয়েছে।

মুম্বাইয়ের পৌর কমিশনার প্রাভীন পরদেশির ভাষ্যানুযায়ী, গত দুই দিনে ৫৪০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে যা এক দশকে দুই দিনে হওয়া সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত।

এর মধ্যে রোববার রাতভর ৩৬১ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে, যার মধ্যে স্থানীয় সময় ভোর ৪টা থেকে ৫টার মধ্যে মুম্বাই বিভাগের পালঘর এলাকায় ১০০ মিলিমিটারেরও বেশি বৃষ্টিপাত হয়েছে।

সোমবার সকাল সাড়ে ৮টা থেকে পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় সান্তাক্রুজ এলাকায় ৯১ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। মুম্বাইয়ের পাশাপাশি মহারাষ্ট্রের ঠাণে, রায়গড় এবং পালঘরেও ভারী বৃষ্টিপাত হয়েছে।

বহু স্বল্প দূরত্বের ও দীর্ঘ দূরত্বের ট্রেন যাত্রা বাতিল করা হয়েছে অথবা বিলম্বিত হয়েছে। এক টুইটে সোমবার ১৩টি ট্রেনযাত্রা বাতিল করার কথা জানিয়েছে ওয়েস্টান রেলওয়ে। দুর্ঘটনা এড়াতে অনেক ট্রেনের গতি কমিয়ে ৩০ কিলোমিটার বেঁধে দেওয়া হয়েছে।

সিয়ন এবং মাতুঙ্গা স্টেশন জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। মুম্বাই-পুণে রেলসড়কে একটি মালগাড়ি লাইনচ্যুত হয়েছে।

ঝড়ে মেরিন লাইনের ট্র্যাকে নির্মাণাধীন একটি বাড়ির বাঁশোর কাঠামো উড়ে এসে পড়ায় ওই লাইনে ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। পরে জঞ্জাল সরিয়ে নেওয়ার পর ওই লাইনে ফের ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে বলে এক টুইটে জানিয়েছে ওয়েস্টার্ন রেলওয়ে।

সিয়ন, দাদার ও মালাদের মতো অনেক নিচু এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। প্রবল বৃষ্টির মধ্যে ওয়েস্টার্ন এক্সপ্রেসওয়েতে যান চলাচলের গতি ধীর হয়ে গেছে।

মুম্বাইয়ের ছত্রপতি শিবাজি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিমান ওঠা-নামায় বিঘ্ন ঘটেছে বলে বিমানবন্দরের এক মুখপাত্রের বরাতে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

সোমবার প্রায় সারাদিনই ভারী বৃষ্টিপাত হতে পারে বলে আবহওয়া দপ্তর পূর্বাভাস দিয়েছে বলে জানিয়েছে আনন্দবাজার পত্রিকা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য