মাত্র তিন মাস আগেই আদিতমারী উপজেলার সদরের কমলাবাড়ী-ভেলাবাড়ী পাকা রাস্তাটির সংস্কার কাজ শেষ হয়েছে। বিলও উত্তোলন করেছেন সংশ্লিষ্ট কাজের ঠিকাদার কিন্তু একদিনের ভারী বৃষ্টিতে ধসে পড়েছে রাস্তাটি। ফলে ওই গুরুত্বপূর্ণ সড়কে ব্যাহত হচ্ছে যান চলাচল। খবর পেয়ে ছুটে আসেন আদিতমারী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান। তিনি রাস্তাটি দ্রুত মেরামতের আশ্বাস দেন এলাকাবাসীকে।

জানা গেছে, উপজেলা সদর থেকে মাত্র এক কিলোমিটার দূরে কমলাবাড়ী-ভেলাবাড়ী সড়কের বড়াবাড়ী নামক স্থানে শনিবার রাতের ভারী বর্ষণে ধসে পড়েছে। ওই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন সীমান্তবর্তী দূর্গাপুর, ভেলাবাড়ী, সারপুকুর ও কমলাবাড়ী ইউনিয়নের কয়েক হাজার লোকজন উপজেলা সদরে যাতায়াত করেন। কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ সড়কটি মেরামতের তিন মাসের মাথায় ধসে পড়ায় বিপাকে পড়েন পথচারীরা। বর্তমানে ওই সড়কে ভারী যান চলাচল বন্ধ রয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলেন, উপজেলা প্রকৌশলী অফিসের কর্মকর্তাদের যোগসাজশে সংশ্লিষ্ট কাজের ঠিকাদার সড়কটি নামমাত্র সংস্কার করে টাকা আত্মসাত করেছেন। নিম্নমানের কাজের অভিযোগ শুরু থেকে করলেও কোন কর্ণপাত করেননি উপজেলা প্রকৌশলী আমিনুল ইসলাম দাবি এলাকাবাসীর। তারই ফলশ্রুতিতে একদিনের ভারী বৃষ্টিতে গুরুত্বপূর্ণ সড়কটি ধসে পড়েছে।

এদিকে খবর পেয়ে আদিতমারী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফারুক ইমরুল কায়েস ছুটে আসেন ঘটনাস্থলে। তিনি এলাকাবাসীর কাছে বিভিন্ন অভিযোগের কথা শুনে ধসে যাওয়া অংশ দ্রুত মেরামত করার উদ্যোগ গ্রহণ করেন। মূহুর্তেই এলাকাবাসী স্বেচ্ছাশ্রমে রাস্তাটি সংস্কারে নেমে পড়েন।

এসব অভিযোগের বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী আমিনুল ইসলামের মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ না করায় কথা বলা সম্ভব হয়নি।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফারুক ইমরুল কায়েস বলেন, জনগুরুত্বপূর্ণ সড়কটি একদিনের বৃষ্টিতে ধসে যাবে তা কল্পনাও করতে পারিনি। কি কারণে এধরনের ঘটনা ঘটেছে তা তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন তিনি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য