ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার মাধ্যমে আমেরিকা দু দেশের মধ্যে যেকোনো ধরনের কূটনৈতিক চ্যানেল স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দিয়েছে।

ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আব্বাস মুসাভি আজ (মঙ্গলবার) এক টুইটার পোস্টে একথা বলেছেন। তিনি বলেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে বিশ্বশান্তির উপায় নস্যাৎ করছে।

মুসাভি বলেন, “ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ী ও দেশের কূটনৈতিক বিভাগের কমান্ডার পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাওয়াদ জারিফের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার অর্থ হলো ইরান ও মার্কিন সরকারের মধ্যে কূটনৈতিক চ্যানেল স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেয়া। আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা রক্ষার ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত সমস্ত উপায়কে ট্রাম্প প্রশাসন ধ্বংস করে দিচ্ছে।”

গতকাল প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ইরানের সর্বোচ্চ নেতা, তার কার্যালয় ও ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি’র আট শীর্ষ কর্মকর্তাকে লক্ষ্য করে মার্কিন সরকার নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। ট্রাম্প বলেছেন, এ নিষেধাজ্ঞার কারণে ইরানের সর্বোচ্চ নেতা ও আট কর্মকর্তা মার্কিন অর্থ ব্যবস্থায় ঢুকতে পারবেন না। চলতি সপ্তাহের শেষের দিকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাওয়াদ জারিফের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হবে বলে মার্কিন অর্থমন্ত্রী স্টিভেন নুচেন জানান।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য