আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধাঃ গাইবান্ধা ও কুড়িগ্রাম জেলার মা ও শিশুর পুষ্টি উন্নয়নের লক্ষ্যে ৫ বছর মেয়াদী একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। ইউরোপিয়ন ইউনিয়নের অর্থায়নে ইকো কো-অপারেশন ও আরডিআরএস’র উদ্যোগে এই প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হবে।

সোমবার গাইবান্ধা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে সাসটেইন্ড অপারচুনেটিস ফর নিউটেশন গভার্নেন্স ( সঙ্গ) নামে এই প্রকল্পের অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক মো. আবদুল মতিন এতে সভাপতিত্ব করেন।

অন্যান্যদের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক মোছা. রোখছানা বেগম, ইকো কো-অপারেশনের কান্ট্রি ডিরেক্টর সেসা এসটেঞ্জার এবং আরডিআরএস ও ইকো কো-অপারেশনের আবুল কালাম আজাদ, হুমায়ুন খালিদ, মোস্তফা নুরুল ইসলাম রেজা, তাওফীকুল ইসলাম প্রমুখ। সভায় মৌলিক পুষ্টি এবং জেলা পুষ্টি সমন্বয় কমিটি সম্পর্কিত বক্তব্য উপস্থাপিত করেন সিভিল সার্জনের পক্ষে ডাঃ আবু আহম্মদ আল মামুন।

উল্লেখ্য, গাইবান্ধা জেলার ফুলছড়ি উপজেলার ফুলছড়ি, উদাখালী, কঞ্চিপাড়া ইউনিয়ন, সুন্দরগঞ্জের বেলকা, চন্ডিপুর, হরিপুর, শ্রীপুর ও তারাপুর ইউনিয়ন ও গাইবান্ধা সদর উপজেলার কামারজানি, ঘাগোয়া, গিদারী ইউনিয়নে এবং কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারী রমনা ও চিলমারী ইউনিয়ন, রৌমারীর বন্দবে[, দাঁতভাঙ্গা, যাদুরচর ইউনিয়ন ও রাজিবপুর উপজেলার চর রাজিবপুর ও মোহনগঞ্জ ইউনিয়নে এই প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হবে।

প্রকল্পের আওতায় প্রকল্পভূক্ত এলাকার ১ লাখ ২৮ হাজার পরিবারের ১০ থেকে ১৯ বছর বয়স্ক ৮০ কিশোর-কিশোরী, প্রজননক্ষম প্রাপ্ত বয়স্ক নারী ৯৫ হাজার, প্রাপ্ত বয়স্ক পুরুষ ৯০ হাজার, ৫ বছরের কম বয়সী শিশু ৫৩ হাজার ও ২ বছরের কম বয়সী ২৫ হাজার শিশুকে এই প্রকল্পের আওতায় পুষ্টির উন্নয়নে সার্বিক সহায়তা প্রদান করা হবে।

সভায় উল্লেখ করা হয় প্রকল্পভূক্ত গাইবান্ধা এবং কুড়িগ্রাম জেলায় অপুষ্টি রয়েছে যথাক্রমে শতকরা ৪৫ এবং ৪১ ভাগ। প্রকল্পের আওতায় অপুষ্টি নিরসনে বিভিন্ন কার্যক্রম গ্রহণ করা হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য