ফুল হয়ে ফুটে ওঠার আগে কুঁড়িতেই ঝরে পড়ার উপক্রম হয়েছে শিশু বিকাশ দাসের। মাত্র ৬ বছর বয়সের নিষ্পাপ শিশুটি জানে না তার জীবন প্রদীপ নিভতে বসেছে। মায়ের কোলে অবুঝ শিশু বিকাশ ফ্যাল ফ্যাল করে অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে।

এই বয়সে অন্য শিশুরা কত প্রাণবন্ত আর চঞ্চলভাবে উঠানে খেলছে। অথচ বিকাশ আজ খেলতে পারে না। হার্টে ছিদ্র থাকায় জন্মের পর থেকেই সে অসুস্থ।

বিকাশ দাস কুড়িগ্রামের উলিপুরের ধরণীবাড়ি এলাকার গজেন দাস ও সোভা রানী দম্পতির ছেলে। দুই ভাইয়ের মধ্যে বিকাশ দাস ছোট। সে স্থানীয় একটি ব্রাক স্কুলে অধ্যয়নরত রয়েছে। আর বড় ভাই শুভ দাস পারিবারিক অস্বচ্ছলতার কারণে মামা বাড়িতে থেকে পড়াশোনা করছে।

বিকাশের বাবা গজেন দাস রংপুর নগরীর একটি বেকারিতে কাজ করে কোনো রকমে সংসারের খরচ চালান। কিন্তু ছেলের এমন অসুখে হতাশা যেন চারদিক থেকে ঘিরে বসেছে তাকে।

তিনি জানান, জন্মের ২ বছর পর রংপুর মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালের শিশু চিকিৎসক বিকাশ মজুমদার তার ছেলের হার্টে ছিদ্র আছে বলে জানান। তারপর থেকে প্রচ- অভাব অনটনের মধ্যেও চিকিৎসা করে আসছে, এখন দ্রুত অপারেশন প্রয়োজন। কিন্তু টাকার অভাবে হার্টের অপারেশন করা সম্ভব হচ্ছে না।

চিকিৎসক বলেছেন ৫ লাখ টাকা প্রয়োজন। কিন্তু কোথায় পাব আমি এই টাকা, কে দিবে আমাকে টাকা। এই ৫ লাখ টাকা জোগাড় হলেই হয়তো শিশু বিকাশের বিপন্ন জীবন রক্ষা করা সম্ভব হতো। তাই সমাজের বিত্তবান ও দানশীল মানুষের কাছে বিকাশের অসহায় পিতা তার এই অবুঝ সন্তানকে বাঁচানোর জন্য আর্থিক সহায়তা কামনা করেছেন।

চিকিৎসায় সহযোগিতা দিতে যোগাযোগ করুন ০১৮৩৪৮৫৮৭৩২ এই নম্বরে। সহযোগি পাঠাতে চাইলে বিকাশ নম্বর – ০১৮৩৪৮৫৮৭৩২। অগ্রনী ব্যাংক রংপুর শাখার হিসাব নং- ১৪৩৯৫/৫ (শোভা রানী সরকার)।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য