দীর্ঘদিন ধরে সামান্য বৃষ্টি হলেই ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের প্রবেশ পথে এক হাটু পানি জমে। চলতি বছর বর্ষা মৌসুমের শুরু থেকে এমন দৃশ্য প্রায়ই দেখা যাচ্ছে। দেখার যেন কেউ নেই।

অথচ ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতাল ১শ শয্যা বিশিষ্ট সরকারি হাসপাতালকে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট আধুনিক হাসপাতাল হিসেবে ঘোষণা দিয়ে ইতোমধ্যে হাসপাতালের জন্য ৮তলা বিশিষ্ট একটি ভবনের নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে।

স্বাস্থ্য সেবা মিটিংয়ে এই জলাবদ্ধতার বিষয়ে বহুবার আলোচনা হলেও কোন সমাধান হয়নি। জলাবদ্ধতার কারণে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীর স্বজনদের।

সদর উপজেলার মোহাম্মদপুর গ্রামের কৃষক আব্দুল মান্নাত জানান, গত দুদিন যাবৎ এ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন তার ছেলে। ছেলের জন্য প্রয়োজনীয় ওষুধ আনতে তাকে প্রতিদিন অন্তত ৪-৫ বার এ নোংরা ও দূষিত পানি ঘেঁটে চলাচল করতে হচ্ছে।

দূষিত পানির কারণে ইতোমধ্যে তার পায়ে চুলকানি দেখা দিয়েছে। সরজমিন দেখা গেছে, গাড়িঘোড়া চলাচলে সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে।

হাসাপাতালের প্রবেশ পথে জলাবদ্ধতার কারণে রোগী ও রোগীর স্বজনদের সীমাহীন কষ্ট লাঘবে খুব দ্রুত সমস্যার সমাধান করতে কর্তৃপক্ষের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন তারা।

ঠাকুরগাঁও অধুনিক সদর হাসপাতালে তত্বাবধায়ক ডা: প্রভাশ কুমার দাশ জানান, হাসপাতালে জলাবদ্ধতার সমস্যা নিরসনে উদ্যোগ নিয়েছি শীঘ্রই সমাস্যার সমাধান হবে বলে আশা করছি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য