নিজেকে অধিক সুন্দর আর সবার কাছে আকর্ষণীয় করে তুলতে গিয়েই পুরুষেরা বাবা হওয়ার ক্ষমতা হারাচ্ছেন! বিজ্ঞানীদের সাম্প্রতিক এক গবেষণায় এমনই তথ্য উঠে এসেছে। মূলত দৃষ্টিনন্দন ও পেশিবহুল শরীরের কামনায় স্টেরয়েড গ্রহণ এবং মাথার টাক সমস্যার চিকিৎসা করাতে গিয়ে তারা এমন সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন বলে গবেষণাটি থেকে জানা যায়।

যুক্তরাষ্ট্রের ব্রাউন ইউনিভার্সিটির গবেষণাকারী দুই বিজ্ঞানী বিবিসিকে জানান, সন্তান উৎপাদনের ক্ষমতা পরীক্ষা করাতে যেসব পুরুষেরা আসছেন তাদের অনেকই সুস্বাস্থ্যের অধিকারী এবং স্টেরয়েডগ্রহণকারী পেশিবহুল। বীর্যে শুক্রাণুর পরিমাণ কমে যাওয়ায় তাদের বাবা হতে সমস্যা হচ্ছে।

শরীরের পেশির দ্রুত বৃদ্ধিতে অ্যানাবলিক স্টেরয়েড ব্যবহারের ফলে পুরুষের হরমোন টেস্টোস্টেরনের মাত্রা বেড়ে যায়। এর ফলে পুরুষ দেহের শুক্রাণু তৈরির দুই ধরনের প্রধান হরমোন এফএসএইচ ও এলএইচের উৎপাদন কমে যায়। এছাড়াও মাথায় টাকের সমস্যা প্রতিরোধে ব্যবহৃত ওষুধেও এমন ধরনের প্রতিক্রিয়া ঘটে থাকে বলে জানান গবেষকরা।

প্রফেসার অ্যালান বলেন, ‘বিষয়টি বেশ আজব। একজন পুরুষ নারীদের আকর্ষণ করতে জিমে যাচ্ছেন, স্টেরয়েড নিচ্ছেন। অথচ শেষমেষ এটিই তার পুরুষত্বের জন্য কাল হয়ে দাঁড়াচ্ছে।’

স্টেরয়েড কতটা ক্ষতিকর তা বোঝাতে তিনি আরও বলেন, ‘অ্যানাবলিক স্টেরয়েড ব্যবহারে একজন পুরুষ ৯০ শতাংশ পর্যন্ত ক্ষমতা হারিয়ে ফেলতে পারেন।’

তাই না জেনে এসবের শরণাপন্ন না হয়ে সুষম খাদ্য গ্রহণ আর নিয়ন্ত্রিত দৈনন্দিন নিয়ম মাফিক জীবনযাপনের পরামর্শ দিলেন দুই গবেষক।
-ইন্ডিয়া টুডে

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য