ডেক্স রিপোর্টঃ দেশের সবচেয়ে বড় ঈদের নামাজ আদায়ের জন্য সম্পূর্ণ প্রস্তুত হচ্ছে উপমহাদেশের সবচেয়ে বৃহৎ দিনাজপুর বড়ময়দান ঈদগাহ মাঠটি।

পবিত্র ঈদ-উল ফিতরের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে। ইতিমধ্যে নামাজের জন্য মাঠ প্রস্তুতির কাজ প্রায় সমাপ্ত। পবিত্র ঈদ-উল ফিতরের প্রধান জামাত দিনাজপুর বড়ময়দানে সকাল সাড়ে ৮টায় অনুষ্ঠিত হবে বলে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রচারণা চালান হয়েছে।

দিনাজপুরের ঐতিহাসিক ময়দানের পশ্চিম প্রান্তে ২০১৫ সালে এই ঈদগাহের নির্মাণকাজ শুরু হয়। নির্মানের প্রায় দেড় বছরে এটি নামাজের জন্য পুরো প্রস্তুত করা হয়। উপমহাদেশে এর তুলনা করার মত অন্য কোন ঈদগাহ মাঠ নেই।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, মাঠ প্রস্তুতি কাজ শেষ। মাঠে জমে থাকা পানি সরিয়ে ফেলা হয়েছে, যেখানে খাল রয়েছে সেই জায়গা গুলো মাটি দিয়ে পূরণ করা হয়েছে। এখন সাইন্ডসিস্টেম পরিক্ষা নিরিক্ষায় ব্যাস্ত কর্মীরা।

দেশের এত বড় ঈদগাহ মাঠ নামাজ আদায়ের জন্য মাঠ তৈরীতে ব্যস্ত শ্রমিকরা। যেন দম ফেলার ফুসরত নেই। গোটা মাঠ যেনসবুজের ঘাসের আস্তরনের পরিণত হয়েছে।

দিনাজপুরবাসী আশা করছে, এবার এই ঈদগাহ মাঠে সবচেয়ে বড় ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে। দিনাজপুর সদর আসনের এমপি জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এই বড় ঈদ জামাতের উদ্যোগ নিয়েছেন।

দেশের সবচেয়ে বড় ঈদের নামাজে ইমামতি করেন দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতাল জামে মসজিদের খতিব শামসুল ইসলাম কাশেমী। পবিত্র ঈদ-উল ফিতরের প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৮টায় অনুষ্ঠিত হবে বলে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

পুলিশ সুপার সৈয়দ আবু সায়েম জানান, মুসল্লদের নিরাপত্তার জন্য ঈদের প্রধান জামাতকে কড়া নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে ফেলার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

ঈদগাহের চারপাশে মেটেল ডিটেক্টর দিয়ে মুসল্লিদের তল্লাশীর পর জামাতে প্রবেশ করানো হবে। বিপুল সংখ্যক পুলিশ সাদা পোশাকে ঈদগাহ প্রাঙ্গণে দায়িত্ব পালন করবেন।

র‌্যাবসহ অন্যান্য গোয়েন্দা সংস্থার কর্মীরাও নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা গ্রহণে সক্রিয় থাকবেন। মাঠের নিরাপত্তার জন্য নির্মিত হয়েছে ৪টি বিশাল পর্যবেক্ষন টাওয়ার।

জাতীয় সংসদের হুইপ ও স্থানীয় সংসদ সদস্য ইকবালুর রহিম আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, এই ঈদগাহ মাঠে লোক সমাগম অনেক বেশি হয়ে থাকবে যা ইতিহাস হয়ে থাকবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য