আজিজুল ইসলাম বারী,লাললমনিরহাট: একমাত্র ছেলে সাদ্দাম হোসেন (২২) দুইটি কিডনিই অকেজো হয়ে গেছে। তার মা সামসুন্নাহার বেগম (৩৫) ছেলেকে বাঁচাতে কিডনি দিবেন। কিন্তু চিকিৎসা করাতে খরচ হবে প্রায় ৫/৬ লাখ টাকা। কোনোভাবেই জোগাড় করার সামর্থ্য নেই হতদরিদ্র পরিবারটির। ফলে ছেলেকে কিডনি দিয়ে বাঁচাতে চেয়েও চিকিৎসার টাকার অভাবে একমাত্র ছেলেকে হারাতে বসেছে মা।

অসুস্থ সাদ্দাম হোসেন বর্তমানে ঢাকা মিরপুর কিডনি ফাউন্ডেশন হাসপাতালে মৃত্যু সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে।

তার মা সামসুন্নাহার বেগমের আকুতি কিডনি আমি দিবো, কিন্তু কিডনি প্রতিস্থাপনের টাকা কে দিবেন? আমার একমাত্র ছেলেকে বাঁচান। এই মাহে রমজানের আপনাদের দানের টাকা দিয়ে আমার ছেলেকে বাঁচাতে সাহায্য করুন। আপনাদের সামন্য সহযোগতিায় আমার ছেলে বেঁচে যাবেন। অল্প বয়সে ছেলেকে হারাতে চাই না।

ঢাকা মিরপুর কিডনি ফাউন্ডেশন হাসপাতালে চিকিৎসক জিয়া উদ্দিন বলেছেন দ্রুত কিডনি প্রতিস্থাপন না করলে তাকে বাঁচান সম্ভব না।

জানা গেছে, লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার ভেলাগুড়ি ইউনিয়নের পশ্চিম কাদমা গ্রামের মৃত আমের আলীর স্ত্রী সামসুন্নাহার বেগম। ৪ মেয়ে ১ ছেলে মধ্যে সাদ্দাম হোসেনে সবার ছোট। গত ৫ বছর স্বামী আমের আলীর মারা যাওয়া পর ছেলে মাত্র এসএসসি পরীক্ষা দিয়ে ঢাকায় গার্মেন্টস চাকুরি নেন সাদ্দাম হোসেন। অনেক কষ্টে দুই মেয়েকে বিয়ে দেন। গত দুই মাস আগে গার্মেন্টসের চাকুরি করা অবস্থায় অসুস্থ হয়ে পড়েন সাদ্দাম হোসেন। বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে চিকিৎসকরা জানান, তার দুইটি কিডনি অকেজো। চিকিৎসা করতে সব বিক্রয় করে আজ নি:শ্ব হয়ে পড়েছে পরিবারটি।

হাতীবান্ধা উপজেলার গোতামারী ডিএনএসসি উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সেকেন্দার আলী জানান, সাদ্দামের বাবা মারা যাওয়ার পর পরিবারটি মানবেতর জীবনযাপন করছেন। সন্তানের দুইটি কিডনি নষ্ট হয়ে গেছে জানার পর মা ভেঙে পড়েছেন। তাই অসহায় পরিবারটি দিকে চেয়ে ছেলে চিকিৎসার জন্য আপনাদের কাছে সাহায্যের আবেদন করছি।

সাদ্দাম হোসেন বলেন,আমার চিকিৎসা করতে এ পর্যন্ত ৫ লাখ টাকা চলে গেছে আরও ৫ লাখ টাকা প্রয়োজন। তাই এত টাকা কে দিবে আমাকে?

এ বিষয়ে ভেলাগুড়ি ইউনিয়ন চেয়াম্যান মহির উদ্দিন জানান, বিষয়টি আমি জেনেছি, সাদ্দামকে তার মা কিডনি দিবেন কিন্তু পরিবারটির অচল অবস্থা কিডনি প্রতিস্থাপনে খরচ জোগাতে পাছে না তা মা তাই সমাজের সকলকে এগিয়ে আমার জন্য অনুরোধ করছি।

অসুস্থ গার্মেন্টসেন কর্মী সাদ্দাম হোসেনকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিন। সবার সহযোগিতা পেলে বাঁচবে সাদ্দাম হোসেন। যোগাযোগ সাদ্দাম হোসেন ০১৭৬১-০৪৭৫২৩,বিদ্যালয়ের শিক্ষক সেকেন্দার আলী নম্বর ০১৭১৪-৫২৪১০৪। তাকে সাহায্য পাঠানো যাবে রকেট নম্বর-(০১৭৭৪১৬৩০৩১৪ বিকাশ ০১৭৩২-২৬০৩১০।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য