ঈদ-উল-ফিতর ঈদ উপলক্ষে সরকারের পক্ষ থেকে রংপুরে হতদরিদ্র জনগোষ্ঠীর মাঝে ভিজিএফ’র ৬৩ লাখ ৪৩ হাজার ৭২৫ কেজি চাল বিতরণ করা হচ্ছে। জেলার ৮ উপজেলা এবং তিন পৌর এলাকার ৪ লাখ ২২ হাজার ৯১৫ ভিজিএফ কার্ডধারীদের মাঝে এসব চাল বিতরণ করা হবে।

এবার প্রত্যেকে ১৫ কেজি করে চাল পাচ্ছেন। গত বছর ১০ কেজি করে চাল দেয়া হয়েছিল। এদিকে আগামীকাল সোমবারের (৩ জুন) মধ্যে চাল বিতরণের এ কর্মসূচি শেষ করার জন্য সংশ্লিষ্টদের তাগিদ দিয়েছে জেলা প্রশাসন।

জেলা প্রশাসনের ত্রাণ ও পুনর্বাসন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, রংপুর জেলার আট উপজেলার মধ্যে সদরে ২৬ হাজার ৮৬৫ জন ভিজিএফ কার্ডধারীর মাঝে বিতরণ করা হবে ৪ লাখ ২ হাজার ৯৭৫ কেজি চাল।

কাউনিয়া উপজেলায় ৪৪ হাজার ৮৫৪ জন ভিজিএফ কার্ডধারী পাবে ৬ লাখ ৭২ হাজার ৮১০ কেজি, বদরগঞ্জ উপজেলায় ৫৫ হাজার ৬২৪ জনের মাঝে ৮ লাখ ৩৪ হাজার ৩৬০ কেজি, তারাগঞ্জ উপজেলায় ২৭ হাজার ২৯৯ জন ভিজিএফ কার্ডধারীর মাঝে ৪ লাখ ৯ হাজার ৪৮৫ কেজি, গংগাচড়া উপজেলায় ৫০ হাজার ৫৫৮ জন ভিজিএফ কার্ডধারীর মাঝে ৭ লাখ ৫৮ হাজার ৩৭০ কেজি চাল দেয়া হবে।

পীরগঞ্জ উপজেলায় ৬৭ হাজার ৭৫০ জন ভিজিএফ কার্ডধারীর মাঝে ১০ লাখ ১৬ হাজার ২৫০ কেজি, মিঠাপুকুর উপজেলায় ৮৯ হাজার ১০১ জন ভিজিএফ কার্ডধারীর মাঝে ১৩ লাখ ৩৬ হাজার ৫১৫ কেজি এবং পীরগাছা উপজেলায় ৫৪ হাজার ৭০৩ জন ভিজিএফ কার্ডধারীর মাঝে ৮ লাখ ২০ হাজার ৫৪৫ কেজি চাল বিতরণ করা হবে।

এছাড়াও জেলার হারাগাছ, পীরগঞ্জ ও বদরগঞ্জ পৌর এলাকার মধ্যে হাগাছে ১ হাজার ৫৪০ জন ভিজিএফ কার্ডধারীর জন্য ২৩ হাজার ১শ’ কেজি, পীরগঞ্জে ১ হাজার ৫৪০ জনের জন্য ২৩ হাজার ১শ’ কেজি এবং বদরগঞ্জে ৩ হাজার ৮১ জন ভিজিএফ কার্ডধারীর মাঝে ৪৬ হাজার ২১৫ কেজি চাল বিতরণ করা হবে।

জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা এটিএম আখতারুজ্জামান বলেন, স্ব-স্ব এলাকায় ইতোমধ্যে চাল বিতরণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। গত বছর ঈদে প্রতিটি ভিজিএফ কার্ডের বিপরীতে ১০ কেজি করে চাল দেয়া হয়েছে। এবার ৫ কেজি করে চাল বৃদ্ধি করে ১৫ কেজি করে দেয়া হচ্ছে।

রংপুরের জেলা প্রশাসক এনামুল হাবীব বলেন, আসন্ন ঈদে প্রকৃত কার্ডধারী হতদরিদ্ররা যাতে তাদের বরাদ্দকৃত চাল পান এজন্য মনিটরিং অব্যাহত রয়েছে। ভিজিএফ এর বরাদ্দকৃত চাল কেউ যদি কালোবাজারী করে তাকেও আইনের আওতায় আনা হবে বলে তিনি জানান।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য