লোকসভা নির্বাচনের মৌসুমে জব্দকৃত সম্পদের পরিসংখ্যান প্রকাশ করেছে ভারতের নির্বাচন কমিশন। রবিবার প্রকাশিত পরিসংখ্যানে দেখা গেছে নির্বাচন কমিশন ও বিভিন্ন আইন শৃঙ্খলা বাহিনী এই সময়ে নগদ অর্থ, মদ, মাদক ও মূল্যবান ধাতু মিলিয়ে মোট প্রায় সাড়ে তিন হাজার কোটি রুপি অর্থের সম্পদ জব্দ করেছে।

ভারতে কয়েক দশকের মধ্যে অনুষ্ঠিত সবচেয়ে তিক্ততাপূর্ণ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে রবিবার (১৯ মে)। দেড় মাস ধরে সাতটি ধাপে অনুষ্ঠিত হয়েছে লোকসভা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। প্রায় ৯০ কোটি ভোটারের দেশটিতে নির্বাচনের সময় অবৈধ প্রভাব খাটাতে রাজনৈতিক দলগুলোর বিরুদ্ধে অর্থ ও মাদক ব্যবহারের অভিযোগ রয়েছে।

আগামী ২৩ মে (বৃহস্পতিবার) ফল ঘোষণার আগেই রবিবার নির্বাচনের সময় জব্দকৃত সম্পদের পরিসংখ্যান প্রকাশ করে নির্বাচন কমিশন। প্রকাশিত পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনের সময় মোট ৮৩৯ দশমিক ৩ কোটি রুপির নগদ অর্থ জব্দ করা হয়েছে। ২০১৪ সালের নির্বাচনের সময় জব্দ করা নগদ অর্থের পরিমাণ ছিল ৩০৩ দশমিক ৮৬ কোটি। এছাড়া এ বছর বিভিন্ন মাদকের অর্থমূল্য প্রায় ১২৭০ দশমিক ৩৭ কোটি রুপি। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের সময় এর পরিমাণ ছিল ৮০৪ দশমিক ৫ কোটি রুপি।

এবছর বিভিন্ন সংস্থার জব্দকৃত বিভিন্ন মূল্যবানের ধাতুর অর্থমূল্য ৯৮৬ দশমিক ৭৬ কোটি রুপি। বিভিন্ন ব্রান্ডের জব্দকৃত মদের অর্থমূল্য ২৯৪ দশমিক ৪১ কোটি রুপি। এছাড়া এবছর জব্দকৃত অন্যান্য সম্পদের অর্থমূল্য ৫৮ দশমিক ৫৬ কোটি রুপি।

২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে তামিল নাড়ু রাজ্য তেকে সবচেয়ে বেশি সম্পদ জব্দ করা হয়েছে। রাজ্যটি থেকে জব্দ করা হয়েছে ৯৫০ দশমিক ১২ কোটি রুপি। এরপরই রয়েছে গুজরাট। সেখান থেকে জব্দ করা হয়েছে ৫৫২ দশমিক ৭৮ কোটি। তৃতীয় স্থানে রয়েছে দিল্লি। ৪২৬ দশমিক ১ কোটি রুপির সম্পদ জব্দ করা হয়েছে সেখান থেকে।

আর সর্বনিম্ন জব্দ হওয়া রাজ্যগুলির মধ্যে রয়েছে মিজোরাম ৬ লাখ, সিকিম ২৯ লাখ ও পদুচেরি থেকে ৭৯ লাখ রুপির সম্পদ জব্দ করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য