মাসুদ রানা পলক, ঠাকুরগাঁওঃ বে-সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কিন্ডারগার্টেন । এই বে-সরকারি প্রতিষ্ঠান কিন্ডারগার্টেন গুলো সরকারি বই পেলেও মানছেনা কোনো সরকারি নিয়ম নীতি। এমন চিত্র দেখা যাচ্ছে পুুরো ঠাকুরগাঁও জেলা জুরে। সরকারি নিয়ম নীতি অপেক্ষা করে তারা চালিয়ে যাচ্ছেন তাদের ক্লাস।

পহেলা রমজান থেকে সারা দেশের ন্যায় ঠাকুরগাঁওয়ের সরকারি, বে-সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো বন্ধ হলেও বন্ধ হচ্ছেনা বে-সরকারি কিন্ডারগার্টেন গুলো।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সদর উপজেলাসহ জেলায় ছোট বড় প্রায় শতাধিক কিন্ডারগার্টেন স্কুল আছে। সান কিন্ডারগার্টেন এন্ড প্রি-ক্যাডেট স্কুল, কনসেপ্ট কিন্ডারগার্টেন, রয়েল কিন্ডারগার্টেন, ন্যাশনাল কিন্ডারগার্টেন, প্রতিভা কিন্ডারগার্টেন, ইকো-পাঠশালা সহ সদর উপজেলায় ২৮টি কিন্ডারগার্টেন আছে।
জেলার রানীশংকৈল উপজেলার নবধারা বিদ্যা নিকেতন, মেরিট কেয়ার স্কুল এন্ড কলেজ, দি মর্ডান কিন্ডারগার্টেন ,নেকমরদ আইডিয়াল কিন্ডার গার্টেন,দি মিলেনিয়াম কিন্ডারগার্টেন,দি সানরোজ কিন্ডার গার্টেন ধর্মগড়, কুলিক প্রি-ক্যাডেট স্কুল এন্ড কলেজ ,রাণীশংকৈল ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল এন্ড কলেজ, পৌরশহরের দি সানরাইজ কিন্ডার গার্টেনসহ ৩১টি কিন্ডার গার্টেন চালিয়ে যাচ্ছেন তাদের শিক্ষা কার্যক্রম। কাউকে তোয়াক্কা না করে এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মানচ্ছেননা সরকারি আইন ।

এলাকার সুধিমহল জানান,এইসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রমজান মাসে দিব্বি চালিয়ে যাচ্ছেন তাদের শিক্ষা কার্যক্রম। সরকার রমজানে ছুটির নির্দেশ দিলেও মানচ্ছেননা প্রতিষ্ঠানের প্রধানরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন অভিভাবক জানান, আমার বাচ্চার স্কুল বন্ধ তবে শহরের নবধারা বিদ্যা নিকেতন, দি সানরাইজ কিন্ডার গার্টেন,মেরিট কেয়ার সহ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কিভাবে তাদের শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন এটা আমার শিক্ষা অধিদপ্তরের কাছে প্রশ্ন।

রাণীশংকৈল উপজেলা বে-সরকারি কিন্ডারগার্টেন স্কুল সমিতি”র সভাপতি এবং দি সানরাইজ কিন্ডারগার্টেন এর প্রধান মোস্তফা কামাল বলেন, আমার স্কুল ১৫ রোজা পর্যন্ত খোলা থাকবে। তবে কিছু কিছু কিন্ডারগার্টেন ২০ রোজা পর্যন্ত খোলা রাখবে বলে আমি জানি।
ঠকুরগাঁও জেলা বে-সরকারি কিন্ডারগার্টেন স্কুল সমিতির সাধারণ সম্পাদক সান কিন্ডারগার্টেন এন্ড প্রি-ক্যাডেট স্কুল এর প্রধান মোঃ ফরায়েদ হোসেন টিটো বলেন, ১৫ রোজা পর্যন্ত ক্লাস চলবে। দুপুর ১টা পর্যন্ত স্কুল খোলা রাখি। স্কুল খোলা রাখা বিষয়ে তিনি আমাদের প্রতিনিধিকে জানান, মোটামটি দুটি কারনেই স্কুল খোলা রাখতে হয়, আমাদের স্কুল যেহেতু বে-সরকারি স্কুল, আমাদের তো সরকার বেতন দেননা দেড় মাস স্কুল বন্ধ থাকলে তো শিক্ষার্থীরা বেতন দিবেনা আর আমরা তাহলে শিক্ষকদের বেতন কিভাবে প্রদান করবো। আর একটি কারন দেড়মাস স্কুল বন্ধ থাকলে শিক্ষার্থীরা সেলেবাস পুরন করতে পারবেনা পিছিয়ে পড়বে। সে কারনেই স্কুল খোলা রাখা হয়।

এবিষয়ে ঠাকুরগাঁও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ মাসুদ রানা বলেন, কিন্ডারগার্টেন গুলো আমাদের নিয়ন্ত্রনে নাই। এরা চলে কিন্ডারগার্টেন সমিতির নিয়মে।

সরকারি ভাবে এইসব প্রতিষ্ঠান রমজান উপলক্ষে ব›েধর নিয়ম আছে কিনা জানতে চাইলে ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক ড. কে এম কামরুজ্জামান সেলিম বলেন, কিন্ডারগার্টেন স্কুল গুলোর নীতিমালা হয়েছে তবে সেখানে কি লেখা আছে সরকারিভাবে বন্ধের নির্দেশে আছে কিনা আমাকে জানতে হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য