Dinajpur-15-04-14জিন্নাত হোসেনঃ জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম বলেন, একাডেমিক পড়ালেখার সাথে দেশ প্রেম, নৈতিক-ধর্মীয় শিক্ষা, নীতি-আদর্শ মূল্যবোধ  শিক্ষা দিতে হবে। শিক্ষকদের কোচিং সেন্টার ব্যবসা নিয়ে ব্যস্ত থাকা বন্ধ করতে হবে।

মঙ্গলবার সকালে দিনাজপুর জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক মো. শাহীন আকতারের সভাপতিত্বে সমাবেশে প্রধান অতিথিরর বক্তব্যে তিনি একধা বলেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে জেলা প্রশাসক আহমদ শামীম আল রাজী, দিনাজপুর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. আলাউদ্দিন মিয়া, দিনাজপুর প্রেসক্লাব সভাপতি চিত্ত ঘোষ এবং দিনাজপুর শিল্প ও বণিক সমিতির সহ-সভাপতি মো. আনোয়ারুল ইসলাম বক্তব্য রাখেন।

হুইপ ইকবালুর রহিম বলেন, নৈতিক শিক্ষার অভাবের কারণে শিক্ষার্থীরা নানান অসামাজিক কাজে জড়িয়ে পড়ছে। এ ব্যাপারে সচেতন থাকতে তিনি অভিভাবকদের প্রতি আহবান জানান। দিনাজপুর জিলা স্কুলকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত উন্নীত করা, আবাসিক সুবিধা সম্প্রসারণ ও উন্নয়ন, ক্যান্টিন সাইকেল স্ট্যান্ড চালু করার উদ্যোগ গ্রহণে প্রতিশ্র“তি ব্যক্ত করেন।

সমাবেশে অভিভাবকদের পক্ষ থেকে হাজী দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মো. শাহাদাৎ হোসেন খান, সরকারি কলেজের সহকারি অধ্যাপক শামস্ পারভীন, আহমেদ শফি রুবেল, দিনাজপুর সরকারী কলেজের সহকারী অধ্যাপক মীর সাজ্জাদ আলী, দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. এস এ সাদেক,  শিক্ষক প্রশিক্ষণ কলেজ’র প্রভাষক হাসিনা আকতার শিউলি, মো, কায়সার আলী, আইনুল হক, রুজী রায়হানা ফেরদৌস, মো. শাহিনূর ইসলাম, সেলিমা আফরোজ, রাকিবা বিনতে হোসেন, পৌর কাউন্সিলর ফয়সাল হাবীব সুমন বক্তব্য রাখেন।
অভিভাবকরা বলেন, সন্তানরা মোবাইল ফোনের অপব্যবহার করছে। কারো সন্তান নষ্ট হলে সে আর একা খারাপ থাকবে না। ভাল ছেলেকে খারাপ পথে টেনে আনবেই।Dinajpur-15-04-14-

অভিভাবক রুজী রায়হানা ফেরদৌস তাঁর বক্তব্যে স্কুলের সকল কার্যক্রম ডিজিটাল পদ্ধতির আওতায় আনায় দিনাজপুর জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষকের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, এসএমএস মাধ্যমে ফলাফল, ডিজিটাল ক্লাশ রুম, প্রতিটি অভিভাবকদের কাছে মোবাইল ম্যাসেজিং এর মাধ্যমে সন্তানের বিষয়ে নানা তথ্য প্রদান করা হচ্ছে। স্কুলে সন্তানরা পড়ালেখা করছে না দুষ্টুমি করছে জানতে পারছেন বলে জানান।

বিশেষ অতিথি জেলা প্রশাসক আহমদ শামীম আল রাজী সাম্প্রতিক সময়ে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে সন্দেহজনকভাবে ঘোরাফেরা করার সময় পুলিশ দিনাজপুর জিলা স্কুলের দুই শিক্ষার্থীর দেহ তল¬াশি করে বেশ কিছু সংখ্যক মোবাইল সিম, একাধিক মেমোরী কার্ড এবং এগুলোতে অনেক পর্ণো ছবি ছিল। সন্তানদের ব্যাপারে সচেতন থাকতে তিনি অভিভাবকদের দায়িত্বশীল হতে বলেন।

দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. আলাউদ্দিন মিয়া বলেন, সরকার পড়ালেখার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নৈতিক শিক্ষার উপরে জোর দিতে জাতীয় শিক্ষানীতিতে পৃথক একটি অধ্যায় যুক্ত করার কথা বলেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি চিত্ত ঘোষ জেলার শিক্ষার মান উন্নয়নে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হুইপ ইকবালুর রহিম, জেলা প্রশাসক এবং সংশ্লিষ্ট শিক্ষক অভিভাকদের প্রতি আহবান জানান। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সহকারি শিক্ষক তছলিম উদ্দিন ও ফারজানা কুহিন।

বার্তা প্রেরক

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য