আজিজুল ইসলাম বারী, লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ ইটভাটার আগুনের তাপে পুড়ে ২০ বিঘা জমির ধান বিনষ্টকারী লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার সেই ইটভাটা মালিকের এক লাখ টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমান আদালত।

শনিবার বিকেলে উপজেলার এএফএইচ ব্রিকসে অভিযান চালিয়ে জরিমানা করেন ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(ইউএনও) আসাদুজ্জামান।

আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার পলাশী ইউনিয়নের ধানের গ্রাম দেওডোবায় স্থানীয় ফারুক মিয়া, আশরাফুল ও হাফিজুর রহমান এএফএইচ ব্রিকস নামে একটি ইটভাটা গড়ে তোলেন। প্রথম দিকে একাধিক বার অভিযান চালিয়ে ভাটায় আগুন না দিতে বলা হলেও প্রশাসনকে না জানিয়ে রাতের আঁধারে আগুন দেয়া হয়। ফলে সাম্প্রতিক সময়ে ওই ভাটার চার দিকের প্রায় ২০ বিঘা জমির ধান পুড়ে নষ্ট হয়ে যায়। ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের ক্ষতিপুরন দেয়ার কথা থাকলেও টালবাহনা করে আসছেন।

ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের দাবি তুলে ধরে ১০মে ‘ধোঁয়ায় পুড়ছে কৃষকের কপাল’ শিরোনামে একটি সচিত্র সংবাদ প্রকাশিত হয়। এ সংবাদের মাধ্যমে কৃষকদের দাবি জানতে পেয়ে ওই ইটভাটায় ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান চালাতে নির্দেশ দেন লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক (ভারপ্রাপ্ত) জহুরুল ইসলাম। সেই নির্দেশনায় আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(ইউএনও) আসাদুজ্জামান থানা পুলিশ নিয়ে অভিযান চালান।

এ সময় ইটভাটার বৈধ কাগজ পত্র ও আগুন দেয়ার অনুমতিপত্র দেখাতে ব্যর্থ হলে মালিক পক্ষের আশরাফুল ইসলামকে আটক করা হয়। বৈধ কাগজপত্র দেখাতে ব্যর্থ হওয়ায় ভাটা মালিক আশরাফুলের এক লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন ভ্রাম্যমান আদালত। সেই সাথে দ্রুত সময়ের মধ্যে ভাটার আগুনে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের উপযুক্ত ক্ষতিপুরন দিতে নির্দেশ দেন। কৃষকদের উপযুক্ত ক্ষতিপুরন না দিলে কঠোর ব্যবস্থার হুশিয়ারী দেয়া হয়।

কয়েক ঘন্টা থানায় হাজতবাস করে জরিমানার এক লাখ টাকা জমা দিয়ে বিকেলে মুক্তি নিয়ে চলে যান আটক ভাটার মালিক আশরাফুল ইসলাম।

আদিতমারী থানারভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাসুদ রানা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য