দিনাজপুর সংবাদাতাঃ ড. ওয়াজেদ মিয়া ছিলেন উত্তরবঙ্গের কৃতী সন্তান। শৈশব থেকে তিনি ছিলেন অসাধারণ মেধার অধিকারী। তিনি সকল প্রকার লোভ লালসার উর্ধ্বে থেকে অত্যন্ত সুনাম এবং দক্ষতার সাথে তাঁর পেশাগত দায়িত্ব পালন করেছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বামী হওয়া সত্ত্বেও ক্ষমতার লোভ তাঁকে কখনও স্পর্স করেনি।

বৃহস্পতিবার বিকালে হাবিপ্রবিতে আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন পরমাণু বিজ্ঞানী ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়ার ১০ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিশ^বিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মু. আবুল কাসেম এসব কথা বলেন।

বৃহস্পতিবার বেলা ২টায় হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে অডিটোরিয়াম-২ এ আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

বিশ^বিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রফেসর ডা. মো. ফজলুল হকের সভাপতিত্বে ও বিশ^বিদ্যালয়ের হিসাব শাখার পরিচালক প্রফেসর ড. শাহাদৎ হোসেন খান এর সঞ্চালনায় সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পোস্টগ্র্যাজুয়েট স্টাডিজ অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. ফাহিমা খানম।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কর্মকর্তাদের পক্ষে কৃষিবিদ ফেরদৌস আলম, ছাত্রলীগ হাবিপ্রবি শাখার নেতা মমিনুল হক রাব্বি ও রিয়াদ খান এবং কর্মচারীদের পক্ষে মো. আবদুর রহিম প্রমূখ। এছ্ড়াা, ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়ার বর্ণাঢ্য জীবনী নিয়ে একটি আলোকচিত্র প্রদর্শন করা হয়।

এছাড়া, বিশ^বিদ্যালয় পরিবারের পক্ষ থেকে ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়ার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ দোয়া করা হয়।

ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়ার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে অনুষ্ঠিত আলোচনা ও দোয়া মাহফিলে বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা, শিক্ষার্থী ও কর্মচারীরা অংশগ্রহণ করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য