দিনাজপুর সংবাদাতাঃ নারী ও কন্যা নির্যাতনের বিরুদ্ধে দেশে আইনের কোন ঘাটতি নেই। তারপরও নির্যাতন বাড়ছেই। আইনের যথাযথ প্রয়োগের পাশাপাশি নারী অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন, সমাজে নারীর প্রতি নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গী পাল্টানোসহ বিভিন্ন কৌশল ও পদক্ষেপ নিলে নারী ও কন্যা নির্যাতনের মাত্রা কমানো সম্ভব হবে। এক্ষেত্রে রাজনৈতিক সদিচ্ছার পাশাপাশি প্রতিটি স্তরে জবাবদিহী বাড়াতে হবে।

৫ মে রোববার দিনাজপুর শিল্পকলা একাডেমি স্টুডিও মিলনায়তনে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ দিনাজপুর জেলা শাখার আয়োজনে নারী ও কন্যা নির্যাতন প্রতিরোধ ও নির্মুলে সামাজিক অনাচার প্রতিরোধ কমিটির সাথে মত বিনিময় সবায় বক্তরা এসব কথা বলেন।

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ দিনাজপুর জেলা শাখার সভাপতি কানিজ রহমান এর সভাপতিত্বে মত বিনিময় সভায় স্বাগত বক্তব্যে মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ড. মারুফা বেগম বলেন, গত ৪ দশকের বেশী সময় ধরে নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে মহিলা পরিষদ আন্দোলন করে আসছে।

কিন্তু বর্তমানে আন্দোলনের জায়গা সংকুচিত হয়ে যাচ্ছে। নারী নির্যাতনের কারণগুলো সেভাবে ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে না। নারী নির্যাতন প্রতিরোধে এলাকাভিত্তিক সামাজিক অনাচার প্রতিরোধ কমিটি গড়ে তোলা, বিভিন্ন স্তরে জবাবদিহী বাড়ানো এবং নির্যাতনের ঘটনা গোপন না করে তা প্রকাশ করতে হবে।

মত বিনিময় সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন দিনাজপুর সামাজিক অনাচার প্রতিরোধ কমিটির আহবায়ক মোঃ শফিকুল ইসলাম, যুগ্ম আহবায়ক জিনাত রহমান, সদস্য এ্যাডঃ মোঃ লিয়াকত আলী, লায়লা চৌধুরী, সাবিনা ইয়াসমিন, অমৃত রায়, মহিলা পরিষদের সহ-সভাপতি মিনতি ঘোষ, আন্দোলন সম্পাদক গৌরী চক্রবর্তী প্রমুখ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মহিলা পরিষদের সহ-সাধারণ সম্পাদক মনোয়ারা সানু।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য