মামলা সংক্রান্ত জটিলতায় স্থগিত হয়ে যাওয়া নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদের ভোট গ্রহন অবশেষে অনুষ্ঠিত হতে চলছে।

রবিবার (৫ মে) ভোট গ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করছেন নির্বাচন কমিশন। ২১ এপ্রিল নির্বাচন পরিচালনা-২ উপসচিব আতিয়ার রহমান ও নির্বাচন ব্যবস্থাপনা সমন্বয়-শাখা-২ সহকারী সচিব মোহাম্মদ আশফাকুর রহমান স্বাক্ষরিত এক আদেশে রবিবার (৫ মে) জলঢাকা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদের ভোট গ্রহণের দিন ধার্য্য করে নির্বাচন সম্পন্ন করার নির্দেশনা দেন জেলা রিটার্নিং অফিসারের কাছে।

চেয়ারম্যান পদের জন্য ২ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দিতা করবেন। এদের মধ্যে একজন উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আনছার আলী মিন্টু (নৌকা প্রতীক), অপরজন কেন্দ্রীীয় যুবলীগ সদস্য ও উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল ওয়াহেদ বাহাদুর (স্বতন্ত্র) চিংড়ি মাছ প্রতীক।

এ ব্যাপারে সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জলঢাকা উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা উজ্জ্বল হোসেন জানান, নির্বাচনের জন্য আমরা প্রস্তুত।

উল্লেখ্য যে, গত ১০ মার্চ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশ নেয়ার জন্য ২ জন প্রার্থী চেয়ারম্যান পদের জন্য মনোনয়ন পত্র দাখিল করেন। যাচাই-বাছাইয়ের দিন কেন্দ্রীয় যুবলীগ সদস্য আবদুল ওয়াহেদ বাহাদুরের প্রার্থীতা অবৈধ ঘোষণা করে তা বাতিল করে জেলা রিটার্নিং অফিসার।

পরে হাইকোর্টের নির্দেশে প্রার্থীতা ফিরে পান আবদুল ওয়াহেদ বাহাদুর। ভোট গ্রহণের তারিখের পূর্বেই নৌকা প্রতীক প্রার্থী আনছার আলী মিন্টু প্রতিপক্ষ আবদুল ওয়াহেদ বাহাদুরের প্রার্থীতা পুন:রায় বাতিল চেয়ে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে একটি আবেদন করেন।

সে সময় ৬ সপ্তাহের জন্য জলঢাকা উপজেলার চেয়ারম্যান পদের ভোট গ্রহণের সকল কার্যক্রম স্থগিত করার নির্দেশ প্রদান করেন আপিল বিভাগ। গত ৮ই এপ্রিল এ-সংক্রান্ত পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে একটি আদেশে আনছার আলী মিন্টুর করা আবেদন খারিজ হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য