সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর ওপর আরোপ করা নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করেছে শ্রীলঙ্কা সরকার।

ইস্টার সানডে পরবের দিন প্রাণঘাতী বোমা হামলার পর গুজব ছড়ানো বন্ধ করতে যে পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছিল তা তুলে নেওয়া হয়েছে বলে মঙ্গলবার প্রেসিডেন্ট দপ্তরের একটি সূত্র বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছেন।

ফেইসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ ও ভাইবারের মতো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের প্লাটফর্মগুলো থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়েছে এবং তা তাৎক্ষণিকভাবে কার্যকরী হবে বলে রয়টার্সকে জানিয়েছেন তিনি।

২১ এপ্রিল আটটি এলাকায় প্রায় একযোগে চালানো আত্মঘাতী বোমা হামলায় ২৫৩ জন নিহত হওয়ার পর থেকে বৌদ্ধ প্রধান ভারত মহাসাগরের এই দ্বীপদেশটিতে উচ্চ নিরাপত্তা সতর্কতা জারি আছে।

মঙ্গলবার দেশটির কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, মুসলিমদের পবিত্র মাস রমজান শুরু হওয়ার আগে জঙ্গিরা নতুন হামলা চালানোর পরিকল্পনা করছে এমন গোয়েন্দা প্রতিবেদন পাওয়ার পর নিরাপত্তা বাহিনীগুলো উচ্চ সতর্কাবস্থায় রয়েছে।

আইনপ্রণেতা ও অন্যান্য কর্মকর্তাদের কাছে পাঠানো একটি চিঠিতে দেশটির পুলিশের মন্ত্রিপরিষদ নিরাপত্তা বিভাগের (এমএসডি) প্রধান জঙ্গিরা সামরিক পোশাকের ছদ্মবেশে একটি ভ্যান ব্যবহার করে হামলা চালাতে পারে বলে সতর্ক করেছেন।

রোববার এবং সোমাবার ওই হামলা হতে পারে বলে তিনি সতর্ক করলেও গত দুই দিনে সেরকম কিছু ঘটেনি। কিন্তু তারপরও নিরাপত্তা নজরদারিতে উচ্চ সতর্কতা বজায় রাখা হয়েছে।

ইস্টার সানডের হামলার পর থেকে সন্ত্রাসবাদের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে এ পর্যন্ত শতাধিক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে অন্তত ৪২ জন বিদেশি নাগরিক বলে জানা গেছে।

পুলিশের একজন ঊর্ধ্বতন গোয়েন্দা কর্মকর্তা মঙ্গলবার বলেছেন, “সামরিক বাহিনী ও পুলিশ সন্দেহভাজনদের খোঁজে থাকায় নিরাপত্তা সতর্কতার উচ্চমাত্রা আরও কয়েকদিন বজায় রাখতে হবে।”

একইদিন শ্রীলঙ্কায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত অ্যালাইনা ট্যাপলিজ জানিয়েছেন, ইস্টার সানডেতে হামলার জন্য যে জঙ্গি গোষ্ঠীগুলোকে দায়ী করা হয়েছে তাদের সদস্যরা এখনও পালিয়ে আছেন এবং আরও হামলা চালানোর পরিকল্পনা করছেন বলে বিশ্বাস যুক্তরাষ্ট্রের।

শ্রীলঙ্কা সরকারের আরেকটি সূত্র রয়টার্সকে জানিয়েছেন, রমজানের আগে হামলা হতে পারে এমন আশঙ্কার কথা জানিয়ে পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনীগুলোকে উচ্চ সতর্কাবস্থা বজায় রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

৬ মে থেকে শ্রীলঙ্কায় রোজা শুরু হবে।

আত্মঘাতী হামলার পর জারি করা জরুরি অবস্থার ক্ষমতাবলে স্থানীয় দুটি কট্টরপন্থি গোষ্ঠীকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনা। এই একই বিধির আওতায় সোমবার থেকে সব ধরনের মুখ ঢাকা পোশাকও নিষিদ্ধ করেছে দেশটির সরকার।

মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) হামলার দায় স্বীকার করলেও শ্রীলঙ্কার কর্তৃপক্ষের সন্দেহ, ন্যাশনাল তাওহীদ জামায়াত (এনটিজে) ও জামিয়াতুল মিল্লাতু ইব্রাহিম নামের স্বল্প পরিচিত স্থানীয় দুটি কট্টরপন্থি গোষ্ঠীর সদস্যরা আত্মঘাতী বোমা হামলাগুলো চালিয়েছে।

এনটিজের প্রতিষ্ঠাতা জাহরান হাশিম এই হামলার প্রধান পরিকল্পনাকারী এবং সে নয় আত্মঘাতী হামলাকারী অন্যতম বলে বিশ্বাস শ্রীলঙ্কান কর্তৃপক্ষের।

এদিকে ভারতীয় পুলিশ জানিয়েছে, তারা শ্রীলঙ্কার নিকটবর্তী ভারতীয় রাজ্য কেরালা থেকে ২৯ বছর বয়সী এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে, সে একই ধরনের হামলা চালানোর পরিকল্পনা করছিল।

এক বিবৃতিতে ভারতের জাতীয় তদন্ত সংস্থা জানিয়েছে, গ্রেপ্তার ব্যক্তি জাহরানের বক্তৃতায় উদ্বুদ্ধ ছিল।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য