একইদিনে ৩৭ জনের শিরশ্ছেদ দিয়েছে সৌদি আরব। দেশটি গত মঙ্গলবার আদালতের দেয়া রায় অনুযায়ী ৩৭ জনের শিরশ্ছেদ ঘটায়। তবে সম্প্রতি সিএনএনের এক খবরে বলা হয়েছে শিরচ্ছেদ দেয়া অনেকে ‘নির্দোষ’।

সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যাদের শিরশ্ছেদ দেয়া হয়েছে অনেকের জবানবন্দী জোর জবরদস্তী করে নেয়া হয়েছে। এমনকি তা করতে তাদের ওপর অমানসিক নির্যাতন চালানো হয়।

গত মঙ্গলবার সৌদি আরব শিরচ্ছেদ দেয় এমন একজন আব্দুলকরিম আল-হাওয়াজ। তিনি ১৬ বছর বয়সে সহিংস বিক্ষোভে অংশ নেয়ার অভিযোগে অভিযুক্ত হন।

আরো একজন মুজতবা আল সৈকত তিনি ১৭ বছর বয়সে এক আন্দোলনে যোগ দেয়ার অভিযোগে ২০১২ সালে গ্রেপ্তার হন। তাকে দমদমের বিমান বন্দরে আটক করে সৌদি প্রশাসন।

সিএনএনের প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, শিরশ্ছেদ দেয়া ৩৭ জনের মধ্যে ১১ জনের বিরুদ্ধে গুপ্তচরবৃত্তি এবং ১৪ জনের বিরুদ্ধে ‘সন্ত্রাসী’-র অভিযোগ আনা হয়। তবে এর বিস্তারিত তথ্য দেয়া হয়নি।

গত মঙ্গলবারে শিরশ্ছেদ দেয়া একজন অন্ধ ও বধিরও ছিলেন বলে সিএনএনের খবরে বলা হয়েছে।

এ ব্যাপারে সিএনএন সৌদি কর্তৃপক্ষকে প্রশ্ন করলে এর কোন জবাব দেয়নি দেশটি।

আল-জাজিরার খবরে বলা হয়, সন্ত্রাস ও বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে অভিযুক্ত থাকার দায়ে সৌদি আরবে একদিনেই ৩৭ জনের শিরশ্ছেদ করা হয়েছে। এছাড়া পরে ২ জনের মৃতদেহ ক্রেন দিয়ে প্রকাশ্যে ঝুলিয়ে রাখা হয়।

দেশটির রাজধানী রিয়াদ, পবিত্র নগরী মক্কা ও মদিনা, মধ্যাঞ্চলীয় কাসিম ও সংখ্যালঘু শিয়া অধ্যুষিত পূর্বাঞ্চলীয় একটি প্রদেশে অভিযুক্তদের শিরশ্ছেদ করা হয়েছে।

চলতি বছরেই দেশটি এ নিয়ে কমপক্ষে ১০০ জনের শিরশ্ছেদ করেছে। এর আগে গত বছর দেশটিতে অন্তত ১৪৯ জনের শিরশ্ছেদ করা হয়েছিল। তথ্য সূত্র: আল-জাজিরা, ডেইলি মেইল।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য