দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের বাসচালক জালাল হোসেনকে চট্টগ্রামে হত্যার বিচার দাবিতে দিনাজপুরে অনির্দিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৫ এপ্রিল) ভোর ৬টা থেকে জেলা থেকে ছেড়ে যায়নি দুরপাল্লার কোনও বাস। সেইসঙ্গে ট্রাক, মাইক্রোবাস, প্রাইভেট কারসহ ইঞ্জিনচালিত সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ রয়েছে।

দিনাজপুর মোটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের ডাকে এই ধর্মঘট চলছে। সকাল থেকে মোড়ে মোড়ে অবস্থান নিয়ে শ্রমিকরা বাস-ট্রাক ও অন্যান্য যানবাহন চলাচলে বাধা দিচ্ছে।

দিনাজপুর মোটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ফজলে রাব্বী জানান, চট্টগ্রামের পটিয়া এলাকায় বাসচালক জালাল হোসেনকে হত্যার প্রতিবাদে এই ধর্মঘট। হত্যাকারীদের গ্রেফতার না করা পর্যন্ত এই ধর্মঘট চলবে।

উল্লেখ্য; সোমবার (২২ এপ্রিল) দিবাগত রাত ২টার দিকে চট্টগ্রামের কর্ণফুলি থানার শিকলবাহা এলাকায় ডিবি পুলিশ পরিচয়ে মারধর করায় বাস চালক জালাল হোসেনের মৃত্যু হয়। তিনি দিনাজপুর সদরের হেলেঞ্চাকুড়ি এলাকার আফজাল হোসেনের ছেলে। শ্যামলী পরিবহনের চালক ছিলেন তিনি।

নিহতের পরিবার জানায়, ৩০ হাজার পিস ইয়াবা আছে, এই অভিযোগে জালাল হোসেনকে একটি নির্জন স্থানে নিয়ে মারধর করে আহত করে ফেলে রেখে যায় ডিবি পরিচয় দেওয়া কয়েকজন। এ সময় বাসের সহকারী রাফিসহ অন্যরা তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় একটি ক্লিনিকে ও পরে চট্টগ্রামে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। বুধবার (২৩ এপ্রিল) মরদেহ দিনাজপুরে নিজ বাড়িতে আনা হয়। এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের বিচার দাবি করেছেন পরিবারের সদস্যরা।

বাসটির সহকারী বগুড়া ধুপচাচিয়া উপজেলার অর্জুনগারী এলাকার মিঠু মিয়ার ছেলে রাফি (১৯) বলেন, ‘ওই দিন রাতে কক্সবাজার থেকে ঢাকায় যাচ্ছিলাম। এ সময় ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে কয়েকজন চালক জালাল হোসেনকে নামিয়ে নেয়। পরে তাকে মারধর ও নির্যাতন করে, এরপর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এই হত্যাকাণ্ডের বিচার চাই।’

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য