দক্ষিণ আফ্রিকার দক্ষিণ ও পূর্বাঞ্চলে ভারি বৃষ্টিপাতের পর বন্যা ও ভূমিধসে অন্তত ৫৪ জন লোকের মৃত্যু হয়েছে।

কাওয়াজুলু-নাটাল প্রদেশের উপকূলীয় এলাকায় ঘরবাড়ি ও ভবন বিধ্বস্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা ৫১ জনে দাঁড়িয়েছে বলে বুধবার জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ, খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্সের।

কয়েকদিন ধরেই ওই এলাকায় ভারি বৃষ্টিপাত হচ্ছিল বলে জানিয়েছে প্রাদেশিক সরকারের এক মুখপাত্র। কিন্তু সোমবার রাতে যে পরিমাণ ‍বৃষ্টিপাত হয়েছে কর্তৃপক্ষ তা প্রত্যাশা করেনি বলে জানিয়েছেন তিনি।

“এর ফলে বন্যা দেখা দেয় এবং কয়েকটি স্থাপনা দুর্বল হয়ে ভেঙ্গে পড়ে,” বলেছেন লেনক্স মাবাসো। পানির তোড়ে কিছু লোক ভেসে যায় বলেও জানিয়েছেন তিনি।

ভেঙ্গে পড়া ঘরবাড়ি ও ভবনগুলো খুঁড়ে উদ্ধারকারীরা হতাহতদের উদ্ধারের চেষ্টা করছে।

কাদার স্রোতে বহু ঘর ও বাড়ি ভেঙ্গে পড়েছে বলে জানিয়েছেন কাওয়াজুলু-নাটালের জরুরি চিকিৎসা সেবা বিভাগের মুখপাত্র রবার্ট ম্যাকেঞ্জি।

বুধবার বন্দর শহর ডারবান ও এর আশপাশের বেশ কয়েকটি প্রধান সড়ক বন্ধ রাখা হয়েছে বলে স্থানীয় গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

বন্যায় ইস্টার্ন কেপ প্রদেশে অন্তত তিন জনের মৃত্যু হয়েছে বলে রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম এসএবিসি বুধবার জানিয়েছে।

দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট সিরিল রামাফোসা উভয় প্রদেশ পরিদর্শন করবেন বলে বুধবার প্রেসিডেন্টের দাপ্তরিক টুইটার একাউন্টে জানানো হয়েছে।

চলতি সপ্তাহে ইস্টারের প্রার্থনা চলাকালে ভারি বৃষ্টিপাত ও প্রবল বাতাসের মধ্যে কাওয়াজুলু-নাটালে একটি গির্জা ধসে ১৩ জনের মৃত্যু হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য