লেটেস্ট ট্রেন্ড অনুসরণ করার জন্যই হোক,একঘেয়েমি কাটিয়ে লুক কিছুটা পালটানোর জন্যই হোক বা নিছক পাকা চুল ঢাকার খাতিরে, চুল রং করে থাকেন অধিকাংশ মেয়ে। কিন্তু চুলের রঙের মধ্যে যে রাসায়নিক থাকে, তা থেকে অ্যালার্জি হওয়া অস্বাভাবিক নয়। এই অ্যালার্জি এড়ানোর একমাত্র উপায় রাসায়নিক হীন প্রাকৃতিক হেয়ার ডাই ব্যবহার করা।

সংবেদনশীল ত্বকের মেয়েদের জন্য আমরা নিয়ে এসেছি এমনই কিছু প্রাকৃতিক রঙের হদিশ যা তৈরি করে নেওয়া যাবে বাড়িতেই। চুলের রং হালকা চান বা গাঢ়, সবরকমই পাবেন এই ঘরোয়া রং থেকে।

হালকা শেডের জন্য
আপনার দরকার
1. দু’ ভাগ পাতিলেবুর রস
2. একভাগ জল
3. স্প্রে বোতল
পদ্ধতি
জলের সঙ্গে লেবুর রস মিশিয়ে স্প্রে বোতলে ভরে নিন। চুলের যে অংশের রং হালকা করতে চান, সেই অংশে স্প্রে করুন। চুলের ওই অংশটা যেন লেবু-জলের মিশ্রণে সম্পূর্ণ ভিজে থাকে। এরপর অন্তত ঘণ্টাখানেক আপনাকে রোদে থাকতে হবে। যদি রোদে যেতে না চান, তা হলে ব্লো ড্রায়ার হট সেটিংয়ে রেখে চুলের অংশটিতে তাপ দিন। এক ঘণ্টা পর চুলে শ্যাম্পু করে কন্ডিশনার লাগিয়ে নিন। সপ্তাহে একবার করে কয়েক সপ্তাহ করলেই ফল পাবেন।

লালচে চুলের জন্য
আপনার দরকার
1. এক কাপ বিটের রস
2. আধ কাপ গাজরের রস
3. পুরোনো জামা
4. স্প্রে বোতল
পদ্ধতি
পুরোনো জামা পরে নিন যাতে দাগ লাগলেও অসুবিধে না হয়। বিট আর গাজরের রস মিশিয়ে স্প্রে বোতলে ভরে নিন। চুলে স্প্রে করে এক ঘণ্টা রোদে থাকুন অথবা ব্লো ড্রায়ার হট সেটিংয়ে রেখে চুলে তাপ দিন। এক ঘণ্টা পর শ্যাম্পু করে কন্ডিশনার লাগিয়ে নিন। সপ্তাহে এক থেকে দু’বার করতে হবে যতদিন না চুলের রং পালটে যাচ্ছে।

গাঢ় লালচে বাদামি চুলের জন্য
আপনার দরকার
1. এক টেবিলচামচ চা/কফি
2. দেড় কাপ জল
পদ্ধতি
জলে চা বা কফি কুড়ি মিনিট ধরে ফুটিয়ে নিন। দেড় কাপ জল কমে আধ কাপ মতো হলে আঁচ থেকে নামিয়ে ঠান্ডা করে ছেঁকে নিন। চুলে শ্যাম্পু করুন, কন্ডিনার লাগান। একদম শেষে চা বা কফির মিশ্রণটা ধীরে ধীরে ভেজা চুলে ঢেলে মেখে নিন। সপ্তাহে এক থেকে দু’বার করলে ফল পাবেন।
-ফেমিনা

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য