ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে পরকিয়ার অভিযোগে এক গৃহবধুকে গাছে বেধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতনের করার ঘটনায়, মামলা করার পর এখনও বাড়ী ছাড়া হয়েছেন নির্যাতিতা গৃহবধু রেশমা বেগম।

নির্যাতিতা রেশমা বেগম বলেন আসামীরা মামলা প্রত্যাহার করার দাবীতে তাকে (নির্যাতিতা) ও তার স্কুল পড়ুয়া মেয়ে প্রকাশ্যে ধর্ষন ও হত্যার হুমকি দিচ্ছে। আসামীদের হুমকিতে বাড়ী ফিরতে পাছেনা, এক আত্ময়ির বাড়ীতে আশ্রয় নিয়েছেন তার ছেলে মেয়েসহ। এতে করে তার স্কুল পড়–য়া মেয়ের লেখাপড়াও বন্ধ হয়ে গেছে।

ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার এলুয়ারী ইউনিয়নের পুটকিয়া গ্রামে। নির্যাতিতা গৃহবধূ পুটকিয়া গ্রামের মৃত আশরাফুল ইসলাম আবুলের স্ত্রী।

মামলার বাদি নির্যাতিতা গৃহবধু রেশমা বেগম বলেন গত ৩ এপ্রিল দিবাগত রাতে তিনি ও তার ছেলে মেয়েসহ প্রতিদিনের মত ঘুমিয়ে পড়েন, এরপর রাত আনুমানিক একটার সময় হঠাৎ তার বাড়ীর প্রাচীর টপকে একদল মানুষ তার বাড়ীতে ঢুকে চোর চোর বলে চিৎকার করে, তাদের চিৎকারে সে ঘরের দরজা খুলে বের হওয়া মাত্র তাকে ধরে গাছের সাথে বেধে নির্যাতন শুরু করে। তারা বলে রেশমা বেগম পরকিয়ায় লিপ্ত ছিল।

নির্যাতিতা গৃহবধূ রেশমা বেগম বলেন ওই দিন রাতে তিনি তার ১৫ বছর বয়সী মেয়ে ও ৭ বছর বয়সি ছেলেকে নিয়ে একই ঘরে শুয়ে ছিল। কিন্তু তার কোন কথায় কর্নপাত না করে মধ্যযুগীয় কায়দার তাকে গাছের সাথে বেধে নির্যাতন করে। এই ঘটনার খবর পেয়ে ফুলবাড়ী থানা পুলিশ ঘটনা স্থলে গিয়ে নির্যাতিতা গৃহবধুকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে, এই ঘটনায় নির্যাতিতা রেশমা বেগম বাদি হয়ে গত ৪ এপ্রিল ফুলবাড়ী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করে।

নির্যাতিতা রেশমা বেগম বলেন মামলা দায়েরের পর থেকে সে আর বাড়ী ফিরেতে পারছে না, আসামীরা প্রকাশ্যে তাকে ও তার স্কুলগামী কিশোরী মেয়েকে ধর্ষন ও হত্যা করার হুমকি দিচ্ছে।

রেশমা বেগমের অভিযোগ তার স্বামী আশরাফুর ইসলামের মৃত্যুর পর তার স্বামীর বড় ভাই জমি সম্পত্তি আত্মসাত করা জন্য তাকে ও তার ছেলে মেয়েকে বাড়ী থেকে তাড়ীয়ে দেয়ার জন্য দীর্ঘদিন থেকে ষড়যন্ত্র করে আসছে, সেই ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে গত ৩ এপ্রিল দিবাগত রাতে মিথ্যা পরকিয়ার অভিযোগ তৈরি করে তাকে সামাজিক ভাবে হেয় ও নির্যাতন করে।

এই বিষয়ে অভিযুক্তের সাথে যোগাযোগ করা হলে সে একটি মোবাইল ফোনের মধ্যেমে বলেন রেশমা বেগম স্বামী মরে যাওয়ার সাথে সাথে এক যুবককে বিয়ে করে কিছুদিন সংসার করার পর ছেড়ে দেয়।

ছেড়ে দেয়ার পরেও তার সাথে পরকিয়া করায় গ্রামবাসীরা তাকে এই শান্তি দিয়েছে। তবে সেই অভিযোগ অস্বীকার করে নির্যাতিতা গ্রহবধু বলেন কারও সাথে তার কোন সম্পর্ক নাই, একটি মিথ্যা নাটক সাজিয়ে তাকে নির্যাতন করা হয়েছে।

এই বিষয়ে ফুলবাড়ী থানার ওসি শেখ নাসিম হাবিব বলেন, গাছে বেধে এক গৃহবধুকে নির্যাতন করছে এই সংবাদ পেয়ে ওই গৃহবধুকে ঘটনা স্থল থেকে উদ্ধার করা হয়,পরে নির্যাতিতার দায়ের করা এজাহার গ্রহন করে মামলা করা হয়েছে। আসামীদের ধরার জন্য অভিযান চলছে। তবে আসামীরা পলাতক থাকায় তাদেরকে আটক করা যায়নি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য