Dinajpur-14-04-14--জিন্নাত হোসেনঃ পহেলা বৈশাখ বাংলা নববর্ষ  ১৪২১ উদযাপন উপলক্ষে জেলা প্রশাসন ও বাংলাদেশ শিশু একাডেমী দিনাজপুর জেলা শাখার উদ্যোগে শিশুদের চিত্রাংকন, লোকসংগীত এবং লোকনৃত্য প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত।

১লা বৈশাখ সোমবার বেলা ১১টায় দিনাজপুর শিশু একাডেমী মিলনায়তনে শিশুদের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, শিশুদের লোক সংগীত প্রতিযোগিতায় এবং লোকনৃত্য প্রতিযোগিতায়  শিশুরা অংশগ্রহণ করে। জেলা শিশু কিশোর কর্মকর্তা মোঃ সাইফুল আলম জানান, প্রতিটি প্রতিযোগিতায় ৩ টি বিভাগে শিশুদের প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। চিত্রাংকন প্রতিযোগিতায় ক বিভাগ শিশু শ্রেণী থেকে দ্বিতীয় শ্রেণী পর্যন্ত বিষয় ছিলো গ্রাম বাংলার দৃশ্য অংকন। খ বিভাগ তৃতীয় শ্রেণী থেকে ষষ্ঠ শ্রেণী পর্যন্ত এবং গ বিভাগ সপ্তম শ্রেণী থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত বিষয় ছিলো বৈশাখী মেলার দৃশ্য অংকন।

লোক সংগীত প্রতিযোগিতায়  ক বিভাগ শিশু শ্রেণী থেকে দ্বিতীয় শ্রেণী পর্যন্ত। খ বিভাগ তৃতীয় শ্রেণী থেকে ষষ্ঠ শ্রেণী পর্যন্ত এবং গ বিভাগ সপ্তম শ্রেণী থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত।  লোকনৃত্য প্রতিযোগিতায় ক বিভাগ শিশু শ্রেণী থেকে দ্বিতীয় শ্রেণী পর্যন্ত। খ বিভাগ তৃতীয় শ্রেণী থেকে ষষ্ঠ শ্রেণী পর্যন্ত এবং গ বিভাগ সপ্তম শ্রেণী থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত শিশুদের প্রতিযোগিতা  অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতায় ৫শতাধিক শিশু অংশগ্রহণ করে।
দিনাজপুর শহর মহিলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে বাংলা নববর্ষ ১৪২১ উদযাপন

দিনাজপুর প্রতিনিধি ঃ বাংলা বর্ষবরণ : বাঙালীরা নববর্ষকে আবাহন ও বরণ করে বাঙালী লোকাচার ও উৎসবের মধ্য দিয়ে বাঙালীত্বের আবরন পড়ানোর প্রচেষ্ঠার পর নববর্ষেও আমাদের বাঙালী বোধের শিকর সন্ধানে আশ্চর্য সংহতি এসেছিল। এক সময় ভিনদেশী শাসকরা আমাদের জাতিসত্তাকে অন্যখাতে প্রবাহিত করার চেষ্ঠা করেছিল। পহেলা বৈশাখ বাঙালী চেতনার একটি উজ্জ্বল বর্ণাঢ্য দিন। জাতিকে নিয়ে যায় একটি সোনালী দরজায়। সম্পুর্ণতা আর সমৃদ্ধির পথে নিজেদের জাতি সত্তাকে সনাক্ত করে মু্িকত এনে দেয়।

দিনাজপুর শহর মহিলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে বাংলা নববর্ষ ১৪২১ উদযাপন উপলক্ষে র‌্যালী শেষে আলোচনা সভায় শহর মহিলা আওয়ামীলীগের আহবায়িকা খ্রিষ্টিনা লাভলী দাস এবং শহর মহিলা আওয়ামীলীগের অন্যতম সদস্য আরিফাত জাহান মৌসুমী এসব  কথা বলেন। র‌্যালী শেষে শহর মহিলা আওয়ামীলীগের আহবায়িকার বাসভবন প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় শহরের বিভিন্ন ওয়ার্ডের মহিলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। আলোচনা সভা শেষে বৈশাখের পান্তা উৎসব অনুষ্ঠিত হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য