দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরে বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে বাংলা নববর্ষ ১৪২৬ সন উদযাপিত হয়েছে। এসব আয়োজনের মধ্যে ছিল শোভাযাত্র, পান্তা ভাতের আয়োজন, চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, আলোচনা সভা, বৈশাখী মেলা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও দোয়া মাহফিল ইত্যাদি।

রবিবার (১৪ এপ্রিল) বাংলা নববর্ষ ১৪২৬ সন উপলক্ষে নববর্ষকে স্বাগত জানিয়ে দিনাজপুর জেলা প্রশাসন ও বৈশাখী উৎসব উদযাপন পরিষদ’র উদ্যোগে দিনাজপুর ইনস্টিটিউট মাঠ হতে এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে বড়মাঠ সংলগ্ন কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে এসে শেষ হয়। শোভাযাত্রার নেতৃত্ব দেন জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি।

শোভাযাত্রায় নানা রঙের মুখোশ পড়ে, মাথায় গামছা বেধে, গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য গরুর গাড়ী, পালকি, তীর-ধনুক, বিভিন্ন জীবজন্তুর ছবি, নৌকায় চড়ে বিভিন্ন বয়সের নারী-পুরুষ শোভাযাত্রায় অংশ নেয়। এছাড়া কিষাণ-কিষাণী, জেলে, তাঁতী, কামার-কুমার, বর-কনে, ডাক্তার, নার্স, দরবেশ, পাগলা বাবা, বৈরাগীসহ বিভিন্ন সাজে সজ্জিত হয়ে স্কুল-কলেজের ছাত্র-ছাত্রী ও কিশোর-কিশোরী ও নানা বয়সের নারী-পুরুষ শোভাযাত্রায় অংশগ্রহণ করেন।

শোভাযাত্রায় অতিথিদের মধ্যে অংশ নেন জেলা প্রশাসক মো. মাহমুদুল আলম, পুলিশ সুপার সৈয়দ আবু সায়েম, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মো. ফরিদুল ইসলাম, দিনাজপুর বৈশাখী উৎসব উদযাপন পরিষদের আহবায়ক মো. সফিকুল হক ছুটু, সদস্য সচিব ও দিনাজপর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ ঘোষ কাঞ্চন, শহর আ’লীগের সাধারণ এসএম খালেকুজ্জামান রাজুসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক-সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতাকর্মী, প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ।

আরো অংশগ্রহণ করে দিনাজপুর জিলা স্কুল, সরকারী বালিকাা উচ্চ বিদ্যালয়, দিনাজপুর মিউনিসিপ্যাল হাই স্কুল (বাংলা স্কুল), সারদেশ্বরী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়, ইকবাল উচ্চ বিদ্যালয়, দিনাজপুর উচ্চ বিদ্যালয়, দিনাজপুর নার্সিং কলেজ, ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালসহ বিভিন্ন সরকারী-বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক-শিক্ষিকা ও বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন। এ ছাড়া বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন তাদের নিজস্ব ভ্যানুতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ নানান কর্মসূচী পালন করে।

দিনাজপুর জেলা প্রশাসন ও শিশু একাডেমীর যৌথ উদ্যোগে শিশু একাডেমী মিলনায়তনে সকালে শিশুদের জন্য চিত্রাংকন ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। এতে শহরের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীরা অংশগ্রহণ করে। এছাড়া গোর-এ-শহীদ বড় ময়দানে দিনাজপুর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে সপ্তাহব্যাপী বৈশাখী মেলার আয়োজন করা হয়েছে।

বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে হাসপাতাল, কারাগার, শিশু সদনে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হয়।

এদিকে বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়। শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। শহরের বিভিন্ন মোড়ে ও গুরুত্বপূর্ণ স্থানে সিসি ক্যামেরা বসানো হয়। এছাড়া সাদা পোষাকে পুলিশ ও বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য