মাসুদ রানা পলক, ঠাকুরগাঁওঃ ঢাকাগামী যাত্রীর ব্যাগে ফেন্সিডিল, একজনের পরিবর্তে অন্যজন আটকের অভিযোগ। ঠাকুরগাঁওয়ে হানিফ কাউন্টারে এসে পরিবারের আহাজারি। নিঃশর্তভাবে মুক্তির দাবি পরিবারের।

বুধবার দুপুরে শহরের হানিফ কাউন্টারে এসে স্বজনরা অভিযোগ করে বলেন, ঠাকুরগাঁও জেলা শহরের মুন্সিপাড়া এলাকার বাসিন্দা আরাফাত হোসেন টিটো। তিনি পেশায় একজন ঢাকাস্ত ব্যবসায়ী।

নবাগত সন্তানকে দেখতে ঢাকা থেকে ঠাকুরগাঁওয়ে আসেন তিনি। সন্তানকে দেখে গত সোমবার রাত সাড়ে ৯ টার হানিফ এন্টারপ্রাইজের গাড়িতে ঠাকুরগাঁও থেকে ঢাকার উদ্যেশ্যে রওনা দেন। বগুড়া শহরে পুলিশ গাড়ি থামিয়ে তল্লাসি চালান।

এসময় গাড়ির লকারে থাকা ব্যাগে ফেন্সিডিল পায়। ব্যাগটি কার সুপারভাইজারকে পুলিশ জিঙ্গেস করলে সুপারভাইজার আরাফাত হোসেন টিটোর নাম বলেন। এসময় টিটো অস্বীকার করেন ব্যাগটি তার নয়। যাত্রা পথে তিনি কোন ব্যাগ নেননি।

আর নিলে সেটির টোকেন থাকার কথা। আর টোকের সাথে নিয়ম অনুযায়ী সিট নম্বরও থাকার কথা। কোনটিই পাননি অভিযুক্তের কাছ থেকে। তারপরও ড্রাইভার ও সুপারভাইজারের জবানবন্দির উপর ভিত্তি করে তাকে আটকের পর চালান করে পুলিশ।

পরিবারের স্বজন সুলতানা আক্তার ও মিতু আরো অভিযোগ করে বলেন, ওই গাড়ির ড্রাইভার আবু জুয়েল ও সুপার ভাইজার রফিকুল ইসলামকে প্রশাসন ভালভাবে ধরলেই সত্য বেড়িয়ে আসবে। আমার ভাই নির্দোষ তাকে নিঃর্শত মুক্তি দেয়া হোক। তাকে ফাঁসানো হয়েছে।

এ বিষয়ে ঠাকুরগাঁও হানিফ এন্টার প্রাইজের কাউন্টার স্যানেজার নারায়ন চন্দ্র জানান, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

আটকের বিষয়ে বগুড়া সদর ও শিবগঞ্জ থানার ওসির সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে ব্যস্ততার কথা বলে পরে কথা বলবেন বলে জানান।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য