নিউ জিল্যান্ডের পার্লামেন্ট সদস্যরা সব ধরনের আধা-স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র ও অ্যাসল্ট বন্দুক নিষিদ্ধের একটি প্রস্তাবে সমর্থন দিয়েছেন।

বুধবার এ সংক্রান্ত একটি বিল নিউ জিল্যান্ডের পার্লামেন্টে ১১৯-১ ভোটে পাস হয়েছে বলে বিবিসি জানিয়েছে।

গভর্নর জেনারেলের কাছ থেকে রাজকীয় সম্মতি পেলে কয়েকদিনের মধ্যেই এটি আইনে পরিণত হবে।

সন্দেহভাজন এক বন্দুকধারী ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে নির্বিচারে গুলি চালিয়ে ৫০ জনকে হত্যার পর গতমাসেই বন্দুক আইনে পরিবর্তন আনার কথা বলেছিলেন নিউ জিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা অ’ডুর্ন।

ওই হত্যাযজ্ঞের দায়ে অস্ট্রেলিয়ার স্বঘোষিত শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠত্ববাদী ব্রেন্টন ট্যারান্টের বিরুদ্ধে খুনের ৫০টি ও হত্যাচেষ্টার ৩৯টি অভিযোগ আনা হয়েছে।

“হামলার ছয়দিন পর আমরা সব আধা-স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র ও অ্যাসল্ট বন্দুকের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘোষণা দিয়েছিলাম। বিভিন্ন বন্দুককে যেসব সরঞ্জাম ব্যবহার করে আধা-স্বয়ংক্রিয় বানানো যায়, সেগুলোও নিষিদ্ধ করা হচ্ছে; সঙ্গে থাকছে বেশি ধারণক্ষম ম্যাগাজিনও,” গত মাসে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন অ’ডুর্ন।

ক্রাইস্টচার্চে হামলার ঘটনায় বন্দুকধারী যেসব আধা-স্বয়ংক্রিয় বন্দুক ব্যবহার করে তার মধ্যে একটি এআর-১৫ ছিল, বেশি বুলেট ধারণক্ষম ম্যাগাজিন (বন্দুকের সেই অংশ, যেখানে গুলি মজুদ রাখা হয়) ব্যবহার করে ওই বন্দুকটির সংস্কার করা হয়েছিল বলেও ধারণা করছেন তদন্ত কর্মকর্তারা।

ক্রাইস্টচার্চের হামলাকারীকে ‘সন্ত্রাসী’ অ্যাখ্যা দিয়ে অ’ডুর্ন কখনোই তার নাম মুখে না আনারও প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

নাগরিকদের মধ্যে যাদের কাছে এখনও আধা-স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র আছে তাদের কাছ থেকে সেগুলো নগদ অর্থে কিনে নেওয়া হবে বলেও জানিয়েছেন নিউ জিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী। এর জন্য তার সরকারের সব মিলিয়ে ১৩ কোটি ৮০ লাখ ডলার খরচ হবে।

“আমাদের সম্প্রদায়গুলোর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আমরা এই মূল্য দিতেই পারি,” বলেছেন তিনি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য