আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা থেকেঃ গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া মৌসুমী কাল বৈশাখী শিলাবৃষ্টিতে ধান, পাট, পানের বরজ, আম-জাম-লিচু ও কাঁঠালসহ উঠতি ফসলের ক্ষতি সাধন হয়েছে। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস সূত্রে জানা যায়, শনিবার দিনগত রাত সাড়ে ১১টা থেকে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত ঘন্টাব্যাপী ঝড়োহাওয়ার সাথে ছোট-বড় অসংখ্য শিলাবৃষ্টিপাত হয়। এতে উপজেলার কিশোরগাড়ী, হোসেনপুর, পলাশবাড়ী, বরিশাল, মহদীপুর, বেতকাপা, পবনাপুর, মনোহরপুর ও হরিনাথপুর ইউনিয়নে একই সাথে শিলাবৃষ্টিতে এ মৌসুমে বোরো ধান, পাট, পানের বর, আম-জাম-লিচু ও কাঁঠালসহ এ মৌসুমে মাঠে থাকা রবিশস্যের বিশেষ ক্ষতি সাধন হয়। হোসেনপুর ইউনিয়নের মুক্তিযোদ্ধা কনক বাবু জানান, ঝাঁপড়, জগন্নাথপুর ও রামচন্দ্রপুর এবং সদর ইউনিয়নের জগরজানি গ্রামের  পান চাষী শ্রী বাবলু সাহা জানান, সিধনগ্রাম, হিজলগাড়ী ও ছোটশিমুলতলা গ্রামে উপজেলার তুলনামুলক ক্ষতির পরিমাণ বেশী। সেখানে বিশেষ করে ধান-পাট ছাড়াও পানের বরজের অপুরনীয় ক্ষতি সাধন হয়। উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ শওকত ওসমান জানান, প্রতিবছরেই প্রাকৃতিক ভাবেই কালবৈশাখী ঝড়ে কমবেশী ক্ষতি সাধন হয়ে থাকে। এ মৌসুমে গত রাতের কালবৈশাখী ঝড় প্রথম। ক্ষতির পরিমানের তুলনায় চাষীদের উপকারই হয়েছে বেশী। তিনি জানান, ২০ মি. মি. বৃষ্টিপাত হয়েছে। ফলে পানি কচুসহ এ জাতীয় ফসলের বিশেষ উপকার সাধিত হয়েছে। অন্যান্য বছরের তুলনায় এ উপজেলায় এবার ধানের চাষ ভাল হয়েছে। ১২ হাজার ৮শ’ হেক্টর জমিতে বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য