জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের বাসিন্দাদের বিশেষ অধিকার দেওয়া কয়েক দশকের পুরনো একটি আইন বাতিল করার অঙ্গিকার করেছে ভারতের ক্ষমতাসীন দল ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) ।

সোমবার হিন্দু জাতীয়তাবাদী দলটির প্রকাশ করা নির্বাচনী ইশতাহারে এ অঙ্গিকার করা হয়েছে বলে খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্সের।

ভারতীয় সংবিধানের আর্টিকেল ৩৫এ অনুযায়ী জম্মু ও কাশ্মীরের বাসিন্দারা ছাড়া অন্য ভারতীয়রা এই রাজ্যটিতে সম্পত্তি কিনতে পারে না।

বিজেপির ইশতাহারে ১৯৫৪ সালে সংবিধান সংশোধন করে যুক্ত করা ওই ধারাটির বিষয়ে বলা হয়েছে, “আমরা বিশ্বাস করি আর্টিকেল ৩৫এ রাজ্যটির উন্নয়নের পথে একটি বাধা।”

নয়া দিল্লিতে দলের সদরদপ্তরে বিজেপির নির্বাচনী ইশতাহার প্রকাশনা অনুষ্ঠানে দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেছেন, “জাতীয়তাবাদ আমাদের অনুপ্রেরণা।”

কাশ্মীরের বিশেষ সাংবিধানিক অধিকার বিলুপ্ত করার জন্য মোদীর বিজেপি ধারাবাহিকভাবে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। এ ধরনের আইনের কারণে পুরো দেশের সঙ্গে জম্মু ও কাশ্মীরের সংযুক্তি বাধাগ্রস্ত হচ্ছে বলে দাবি দলটির।

বিজেপির এই নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি ভারতের একমাত্র মুসলিম প্রধান রাজ্যটিতে ব্যাপক নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এই আইনটি পাল্টানো হলে তা ব্যাপক অস্থিরতার কারণ হতে পারে বলে ইতোমধ্যে সতর্ক করেছেন কাশ্মীরের রাজনৈতিক নেতারা।

জম্মু ও কাশ্মীরে ভারতীয় শাসনের বিরুদ্ধে সশস্ত্র বিদ্রোহ চলছে। রাজ্যটিতে বিপুল সামরিক সদস্য মোতায়েন করে এই বিদ্রোহ দমনের চেষ্টা করছে নয়া দিল্লি।

আগামী বৃহস্পতিবার থেকে ভারতেরলোকসভা নির্বাচনে ভোট গ্রহণ শুরু হবে।

৪৫ পাতার ইশতেহারে ‘নতুন ভারত’-এর জন্য ৭৫টি অঙ্গীকার নেওয়া হয়েছে বলে ঘোষণা করেন অমিত শাহ। একনজরে বিজেপির ইশতেহার।

১. জাতীয়তাবাদে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ বিজেপি।

২. জাতীয় নিরাপত্তা নিয়ে বিজেপি কোনও সমঝোতা করবে না। সামরিক শক্তি বাড়াতে উন্নতমানের সমরাস্ত্র যোগ অব্যাহত থাকবে।

৩. সন্ত্রাস দমনে জিরো টলারেন্স বজায় রাখবে বিজেপি।

৪. সীমান্তপারে অনুপ্রবেশ সম্পূর্ণ বন্ধ করতে সকল ব্যবস্থা করবে বিজেপি।

৫. নাগরিকত্ব সংশোধন বিল পাশ করবে বিজেপিশাসিত সরকার। তবে বিভিন্ন রাজ্যের সংস্কৃতি ও অস্তিত্বে আঁচ পড়তে দেবে না।

৬. বিজেপির আমলে রাম মন্দির নির্মাণ করা হবে।

৭. ২০২২ সালের মধ্যে কৃষকদের আয় দ্বিগুণ করা হবে। কিষাণ সমৃদ্ধি নিধি প্রকল্পে প্রত্যেক কৃষককে বছরে ৬,০০০ টাকা সাহায্য দেওয়া হবে।

৮. কিষাণ ক্রেডিট কার্ডে নেওয়া ১ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণে এক বছর থেকে পাঁচ বছর পর্যন্ত সুদ শূন্য শতাংশ।

৯. গ্রামীণ এলাকার উন্নয়নে ২৫ লক্ষ কোটি টাকা খরচ করবে বিজেপিশাসিত সরকার।

১০. ৬০ বছর হলে পেনসন পাবেন ছোট ও প্রান্তিক চাষিরা।

১১. ৬০ বছর হলে পেনসন পাবেন ছোট দোকানদাররা।

১২. অবকাঠামো খাতে ২০২৪ সালের মধ্যে ১০০ লাখ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে বিজেপি।

এছাড়া রবিবারই দলের প্রচার থিম ও ট্যাগলাইন প্রকাশ করেছেন অরুণ জেটলি। এ বার তাঁদের স্লোগান, ‘ফির একবার, মোদী সরকার’। তথ্যসূত্র: এনডিটিভি, দ্য হিন্দু, এই সময়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য