সুদানের রাজধানী খারতুমে সরকার বিরোধী হাজার হাজার বিক্ষোভকারী জরুরি অবস্থা জারি থাকা সত্ত্বেও প্রেসিডেন্ট ওমর আল-বশিরের বাসভবন পর্যন্ত পৌঁছে গেছেন।

গত ডিসেম্বর মাসের মাঝামাঝি সময়ে নিত্যপণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষাপটে সরকার বিরোধী আন্দোলন শুরু হওয়ার পর গতকালের (শনিবার) এ বিক্ষোভ ছিল সবচেয়ে বড় সরকার বিরোধী মহড়া।

এ সময় বিক্ষোভকারীদের হাতে শোভা পাচ্ছিল সুদানের পতাকা ও প্রেসিডেন্ট বশিরকে পদত্যাগের আহ্বান সম্বলিত প্ল্যাকার্ড। সুদানের প্রেসিডেন্ট প্রাসাদের সঙ্গেই দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় ও নিরাপত্তা বাহিনীগুলো সদরদপ্তর অবস্থিত। শনিবার বিক্ষোভকারীরা তিনদিক দিয়ে ওই এলাকা ঘিরে ফেলে। এ সময় নিরাপত্তা বাহিনী টিয়ারগ্যাস নিক্ষেপ করে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করার চেষ্টা করলে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। পুলিশ বেশ কিছু বিক্ষোভকারীকে আটক করেছে।

সুদানের সাবেক স্বৈরশাসক জাফর নিমেরির বিরুদ্ধে ১৯৮৫ সালের গণঅভ্যুত্থান শুরুর বার্ষিকীতে গতকালের বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়। এ বিক্ষোভকে বর্তমান প্রেসিডেন্ট ওমর আল-বশিরের বিরুদ্ধে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে উল্লেখ করেছেন পর্যবেক্ষকরা। বশির ১৯৮৯ সালে এক সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতা গ্রহণ করেছিলেন।

গত তিন মাস ধরে চলা বিক্ষোভ নিয়ন্ত্রণের উদ্দেশ্যে বশির দেশে জরুরি অবস্থা জারির পাশাপাশি কেন্দ্রীয় সরকার ভেঙে দিয়েছেন, বিভিন্ন রাজ্যের গভর্নরদের সরিয়ে দিয়ে নিরাপত্তা বাহিনীকে প্রশাসন চালানোর নির্দেশ দিয়েছেন এবং পুলিশের ক্ষমতা বাড়িয়ে অপ্রয়োজনীয় সমাবেশ নিষিদ্ধ করেছেন। কিন্তু এসব পদক্ষেপ উপেক্ষা করে জনতা রাস্তায় নেমে প্রেসিডেন্ট বশিরের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখাচ্ছে।
– খবর পার্সটুডে

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য