ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে নির্বিচার হত্যাকাণ্ড চালানো সন্ত্রাসীর বিরুদ্ধে ৫০টি খুনের অভিযোগ ও ৩৯টি হত্যাচেষ্টার অভিযোগ আনবে নিউ জিল্যান্ড পুলিশ।

শুক্রবার সন্দেহভাজন অস্ট্রেলীয় শ্বেত বর্ণবাদী ব্রেন্টন ট্যারান্টকে (২৮) আদালতে হাজির করে এসব অভিযোগ আনা হবে বলে বৃহস্পতিবার জানিয়েছে পুলিশ, খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্সের।

সন্দেহভাজনের বিরুদ্ধে আরও অভিযোগ আনার বিষয়টি বিবেচনাধীন আছে বলেও জানিয়েছে তারা।

১৫ মার্চের ওই হত্যাকাণ্ডের পরদিন ট্যারান্টকে আদালতে হাজির করা হয়েছিল। সে সময় তার বিরুদ্ধে একটি খুনের অভিযোগ এনে তাকে আত্মপক্ষ সমর্থনের কোনো সুযোগ না দিয়েই রিমান্ডে নিয়ে গিয়েছিল পুলিশ।

ঘটনার দিন জুমার নামাজের সময় হামলাকারী ট্যারান্ট একাই আধাস্বয়ংক্রিয় অস্ত্র নিয়ে ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে হামলা চালায়। তার নির্বিচার গুলিবর্ষণে ৫০ জন নিহত ও অন্তত ৩৯ জন আহত হয়েছিল। নিজের হামলার এ ঘটনা সরাসরি ফেইসবুকে সম্প্রচারও করেছিল সে।

এটিই নিউ জিল্যান্ডে একক কোনো ব্যক্তির চালানো সবচেয়ে নির্বিচার হত্যাকাণ্ড। এ ঘটনাকে ‘সন্ত্রাসী হামলা’ বলে অভিহিত করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা অ’ডুর্ন।

শুক্রবার স্থানীয় সময় দুপুর ১টায় ভিডিও লিঙ্কের মাধ্যমে ট্যারান্টকে ক্রাইস্টচার্চ হাই কোর্টে হাজির করার কথা রয়েছে।

নিয়ম পালনের জন্যই তাকে আদালতে হাজির করা হচ্ছে এবং যেসব অভিযোগের মুখোমুখি সে হচ্ছে সেগুলোর জন্য আত্মপক্ষ সমর্থন করার সুযোগ সে পাবে না বলে চলতি সপ্তাহে জানিয়েছেন ক্রাইস্টচার্চ হাইকোর্টের এক বিচারপতি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য