ব্যাপক গণআন্দোলনের মুখে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিলেন আলজেরিয়ার প্রেসিডেন্ট আব্দেল আজিজ বুতেফলিকা। ৮২ বছর বয়সী বুতেফলিকা ২০ বছর ধরে আফ্রিকার এই দেশটির প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। পঞ্চমবারের মতো একই পদে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চেয়েছিলেন তিনি। যদিও ছয় বছর আগে স্ট্রোকে পক্ষাগাতগ্রস্ত হওয়ার পর তাকে খুব কমই জনসম্মুখে দেখা গেছে।

আন্দোলনকারীরা শুধু বুতেফলিকা নন, বর্তমান ব্যবস্থারও পরিবর্তন চান। তাই আগামী ১৮ এপ্রিল ঘোষিত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময়সূচি বাতিল করা হয়েছে। ক্ষমতাসীন ন্যাশনাল লিবারেশন ফ্রন্ট রাষ্ট্রীয় সংস্কারের লক্ষ্যে জাতীয় সংলাপের আয়োজন করার ঘোষণা দিয়েছে।

দেশটির সেনবাহিনী বলেছে, ৮২ বছর বয়সী প্রেসিডেন্ট তার রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালনে অক্ষম। রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়, প্রজাতন্ত্রের প্রেসিডেন্ট আব্দেল আজিজ বুতেফলিকা সাংবিধানিক পরিষদের প্রেসিডেন্টকে তার সরে দাঁড়ানোর কথা নিশ্চিত করেছেন।

সংবিধান অনুযায়ী দেশটির সিনেটর স্পিকার আব্দেলকাদের বেনসালাহ নতুন নির্বাচন না হওয়া পর্যন্ত অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করবেন। পদত্যাগের ঘোষণার পর রাজধানী আলজিয়ার্সে শত শত মানুষকে আনন্দ মিছিল করতে দেখা গেছে। জনগণ দেশটির জাতীয় পতাকা হাতে নিয়ে জাতীয় সংগীত গাইছে।

বিক্ষোভরত জনগণ দেশটিতে কার্যকর ও অর্থবহ গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার দাবি করছে। প্রেসিডেন্ট বুফেতলিকা পদত্যাগ করলেও সেই দাবিতে আন্দোলন অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছেন অনেকেই। আলজিয়ার্সের বিক্ষোভরত জনগণকে উদ্বৃত করে রয়টার্সের খবরে এমনটি বলা হয়েছে।

সেলমাওই সিদ্দিক নামে এক বিক্ষোভকারী বলেন, আল্লাহ চাইলে আমরা শতভাগ গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় যাব। এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এখন আমাদের পূর্ববর্তী সব অগণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে অপসারণ করতে হবে। এটা অবশ্যই অনেক কঠিন।

আরেকজন বিক্ষোভকারী মুস্তফা বুচাচি বলেন, বুতেফলিকা সরে দাঁড়ালেও এখনো কিছুই পরিবর্তন হয়নি। তাই আমাদের বিক্ষোভ অব্যাহত থাকবে।

ফেব্রুয়ারিতে পঞ্চমবারের মতো নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার ঘোষণা দিলে প্রথম বিক্ষোভ শুরু হয়। পরে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা না করার ঘোষণা ও প্রধানমন্ত্রী পদে পরিবর্তন আনার ঘোষণা দেন বুতেফলিকা। আগামী ২৮ এপ্রিল মেয়াদ পূর্ণ করা পর্যন্ত দায়িত্ব পালন শেষে সরে দাঁড়ানোর কথাও বলেন তিনি। তবে বিক্ষোভকারীরা তার তাৎক্ষণিক পদত্যাগ করেন। এক পর্যায়ে দেশটির সেনা প্রধান লেফটেনেন্ট জেনারেল আহমেদ জায়েদ সালাহও প্রেসিডেন্টকে সরে দাঁড়ানোর পরামর্শ দেন।

উল্লেখ্য, ১৯৬২ সালে স্বাধীনতার পর ন্যাশনাল লিবারেশন ফ্রন্ট আলজেরিয়ার শাসন ক্ষমতায় রয়েছে। আর বুতেফলিকা দেশটির প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেন ১৯৯৯ সালে। ইসলামিক গ্রুপগুলোর সঙ্গে রক্তক্ষয়ী গৃহযুদ্ধের পর তিনি ক্ষমতাকে সংহত করেন। যেই গৃহযুদ্ধে দেড় লাখ মানুষ মারা যায়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য