ভারত নিয়ন্ত্রত জম্মু-কাশ্মিরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ওমর আব্দুল্লাহ রাজ্যটিতে আলাদা রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর পদ ফিরিয়ে পক্ষে সাফাই দেয়ায় জাতীয় রাজনৈতিক অঙ্গনে বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। গতকাল (সোমবার) ওমর আবদুল্লাহ কাশ্মিরের জন্য আলাদা সদর-এ-রিয়াসত (রাষ্ট্রপতি) ও উজির-এ-আজম (প্রধানমন্ত্রী) ফিরিয়ে আনার কথা বলেছেন।

জম্মু-কাশ্মিরের বান্দিপোরায় এক জনসভায় ৩৭০ ও ৩৫-এ ধারার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে ওমর বলেন, ‘নিজেদের স্বতন্ত্র সত্ত্বা বজায় রাখতে আমরা সংবিধানে কিছু বিষয় অন্তর্ভুক্ত করেছি। আমরা বলেছিলাম, আমাদের স্বতন্ত্র পরিচিতি বজায় রাখতে হবে। আমাদের নিজস্ব আইন, পতাকা থাকবে। একসময় আমাদের সদর-এ-রিয়াসত (রাষ্ট্রপতি) এবং উজির-এ-আজমও (প্রধানমন্ত্রী) ছিলেন। ইনশাআল্লাহ্‌ তা আমরা পুনরায় ফিরিয়ে আনব।’

ওমর বলেন, ‘জম্মু-কাশ্মির অন্য রাজ্যের মতো নয়, তারা বিনা শর্তে দেশের সঙ্গে মিশে গিয়েছিল। কিন্তু আমরা বলেছিলাম আমাদের আলাদা পরিচিতি হবে, নিজেদের ভিন্ন আইন হবে, পতাকা আলাদা হবে। আমরা সেসময় নিজেদের সদর-ই-রিয়াসাত এবং উজির-এ-আজমও রেখেছিলাম। ইনশাআল্লাহ্‌ সেসবও আমরা ফিরিয়ে আনব।’

ওমর বলেন, ৭০ বছর পরে রাজ্যের বিশেষ মর্যাদার (৩৭০, ৩৫-এ ধারা) বিরোধী শক্তি শর্ত থেকে পিছিয়ে আসার চেষ্টা করছে। কিন্তু আমরা রাজ্যের বিশেষ মর্যাদার ওপরে আক্রমণের অনুমতি দেবো না। এর বিপরীতে আমরা ফের তা অর্জন করার চেষ্টা করব যা লঙ্ঘন করা হয়েছে।

ওমর আব্দুল্লাহর ওই মন্তব্য প্রকাশ্যে আসার পরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি কংগ্রেসের কাছে জবাব চেয়ে বলেছেন, ‘আপনাদের জোটসঙ্গী ন্যাশনাল কনফারেন্স কীভাবে এমন দেশবিরোধী দাবি তোলার সাহস পায়? এ ব্যাপারে কংগ্রেসের অবস্থান কী, তা আপনারা স্পষ্ট করুন।’ কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলিও ওমরের মন্তব্যের সমালোচনা করেছেন।

ওমর অবশ্য বলেছেন, আমার মন্তব্যকে জাতীয় অঙ্গনে আনার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ। আমাদের নিজেদের অবস্থানের জন্য অন্য দলকে সঙ্গে চাই না। কংগ্রেস ও অন্য বিরোধীদলেরও আমার মন্তব্য সম্পর্কে দূরত্ব রাখতে দ্বিধা করার প্রয়োজন নেই।
-খবর পার্সটুডে

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য