ব্রেক্সিট চুক্তিতে সমর্থনের বিনিময়ে পদ ছাড়তে রাজি হয়েছেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মে।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সঙ্গে সম্পর্কোচ্ছেদের পথরেখা তৈরির পরিকল্পনায় পার্লামেন্টে দুই দফা ভোটে হারের পর তৃতীয় দফা ভোটের আগে বুধবার রক্ষণশীল দলের এমপিদের এক বৈঠকে তিনি প্রতিশ্রুতি দেন বলে বিবিসি ও রয়টার্স জানিয়েছে।

টোরি দলের একজন পার্লামেন্ট সদস্য রয়টার্সকে বলেছেন, চুক্তিটি পাস হলে টেরিজা পদ ছেড়ে যাবেন। অর্থাৎ তিনি চুক্তি পাস হওয়ার পর আর দায়িত্বে থাকবেন না।

টোরি দলের আরেক পার্লামেন্ট সদস্য বলেছেন, পদত্যাগের কোনো দিনক্ষণ টেরিজা মে জানাননি, তবে তিনি ‘যথা শিগগিরই’ দায়িত্ব ছাড়বেন।

রক্ষণশীল দলের আরেক পার্লামেন্ট সদস্য জানিয়েছেন, বৈঠকে মে বলেছেন, ব্রেক্সিটের পরবর্তী পর্যায়ের আলোচনার দায়িত্ব উত্তরসূরির হাতেই দিতে যাচ্ছেন টেরিজা।

গত তিন বছর ধরে চলা ব্রেক্সিট নাটকীয়তায় মে’র এই সিদ্ধান্ত নতুন মাত্রা দিলেও কবে, কীভাবে ইইউর সঙ্গে যুক্তরাজ্যের সম্পর্কোচ্ছেদ হবে, তা এখনও স্পষ্ট হয়নি।

২০১৬ সালের ২৩ জুন যুক্তরাজ্যে এক গণভোটে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে দেশটির চার দশকের সম্পর্কোচ্ছেদের রায় হয়।

পৌনে দুই কোটি ভোটারের ৫২ শতাংশ ভোট দিয়েছিল ইইউ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পক্ষে; তাদের কথা ছিল, ইইউর অন্য দেশগুলোকে টানতে গিয়ে তাদের পাউন্ড খরচ হয়ে যাচ্ছে।

অন্যদিকে ৪৮ শতাংশের ভোট ছিল ইউরোপের আরও ২৭টি দেশের জোটে থেকে যাওয়ার। ওই ভোটে হারের পর তারা পুনরায় গণভোটের দাবিও তুলেছিল, তবে তা ঘটেনি।

ওই গণভোট ছিল সম্পর্ক ছিন্নের আনুষ্ঠানিকতার শুরু। ভোটে হারের পর রক্ষণশীল দলের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন পদত্যাগ করলে টেরিজা মে সেই দায়িত্ব নিয়ে বিচ্ছিন্নতার পথরেখা তৈরির প্রক্রিয়া শুরু করেন।

এজন্য সময় বেঁধে দেওয়া ছিল চলতি বছরের ২৯ মার্চ। কিন্তু তার মধ্যে নিজের দেশের পার্লামেন্টে কোনো রূপরেখা পাস করাতে না পারার পর ইতোমধ্যে ইইউর কাছ থেকে ওই সময়সীমা ১২ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়িয়ে নিয়েছেন মে।

নিজ দলের সদস্যদের সবার সমর্থন না পাওয়ায় বিচ্ছেদের দুটি প্রস্তাব পরপর পার্লামেন্টে নাকচ হয়ে যাওয়ার পর গত জানুয়ারিতে পার্লামেন্টে অনাস্থা ভোটের মুখেও পড়েছিলেন মে।

তাতে কোনো মতে উৎরে গেলেও এখন একটি চুক্তি পাসের জন্য মেয়াদ পূর্তির তিন বছর আগে ১০ নম্বর ডাউনিং স্ট্রিট ছাড়তে হচ্ছে তাকে।

মে প্রধানমন্ত্রিত্ব ছেড়ে দেবেন এমন প্রতিশ্রুতি দিলে ব্রেক্সিট চুক্তি পাসে প্রয়োজনীয় সমর্থন পেতে পারেন বলে ক্ষমতাসীন টোরি দলের নেতারা আগেই বলে আসছিলেন।

পদত্যাগের প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পর এখন আগামী শুক্রবার মে তার নতুন প্রস্তাব পার্লামেন্টে তুলতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এই প্রস্তাবের ক্ষেত্রে ইইউতে থাকা আয়ারল্যান্ডের সঙ্গে ব্রিটিশ শাসিত উত্তর আয়ারল্যান্ডের সীমান্ত পুনঃপ্রতিষ্ঠার বিষয়টি নিয়েই আপত্তি জানিয়ে আসছেন টোরি দলের বেশিরভাগ সদস্য।

সীমান্ত বিষয়ক চূড়ান্ত নিষ্পত্তির আগে ইইউর কিছু নীতি অনুসরণের কথা বলা আছে এতে, যা যুক্তরাজ্যকে অনির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত ইইউর নিয়মে আটকে রাখবে বলে শঙ্কা প্রস্তাবের বিরোধীদের।

ব্রেক্সিট চুক্তি যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্টে অনুমোদন করিয়ে নেওয়ার পর ইইউর সঙ্গে সম্পর্ক বিনির্মাণের কাজ শুরু হবে; তার জন্য ২০২০ সালের ৩১ ডিসেম্বর নাগাদ সময় রয়েছে।

আর সেই আলোচনার জন্য এখন টেরিজা মের বদলে নতুন কেউ আসতে যাচ্ছেন। আর এক্ষেত্রে ডেভিড লাইডিংটন ও মাইকেল গোভের নাম আলোচনায় রয়েছে।

কিন্তু যদি কোনো চুক্তি ছাড়াই যুক্তরাজ্যকে ইইউ ছাড়তে হয়, সেটা দেশটির জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হবে। কারণ তাহলে ১২ এপ্রিলের পর আর অন্তর্বর্তীকালীন সময় থাকবে না। তখন থেকেই যুক্তরাজ্যের জন্য ইইউর সব নিয়ম-কানুন অকার্যকর হয়ে যাবে; এক রাতেই ইউরোপের ২৭টি দেশের সঙ্গে যুক্তরাজ্যের সব সম্পর্ক ছিন্ন হয়ে যাবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য