রংপুর চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র উদ্যোগে ‘‘বীর মুক্তিযোদ্ধা সম্মাননা-২০১৯’’ চেম্বার ভবনের আরসিসিআই অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, রংপুর জেলা ইউনিট কমান্ড এর আওতাভূক্ত ০৩ (তিন) জন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মাননা প্রদান করা হয়।

রংপুর চেম্বারের সভাপতি মোস্তফা সোহরাব চৌধুরী টিটুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার মোহাঃ আবদুল আলীম মাহমুদ, বিপিএম। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, রংপুর জেলা ইউনিটের কমান্ডার ও এফবিসিসিআই এর পরিচালক এবং রংপুর চেম্বারের সাবেক সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ মোছাদ্দেক হোসেন বাবলু।

মহান মুক্তিযুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার জন্য দৈনিক দাবানল সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা খন্দকার গোলাম মোস্তফা বাটুল, কাউনিয়া উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ শামছুল হক ও পীরগঞ্জ উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ মোজাফফর হোসেন-কে রংপুর চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র পক্ষ থেকে উত্তরীয় পরিধান ও উপঢৌকন প্রদানের মাধ্যমে সম্মাননা প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে সম্মাননা প্রাপ্ত ৩ জন মুক্তিযোদ্ধার ওপর নির্মিত ভিডিও ডকুমেন্টরী প্রদর্শন করা হয়।

সম্মাননা অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন রংপুর চেম্বারের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোজতোবা হোসেন রিপন, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, রংপুর জেলা ইউনিটের কমান্ডার ও এফবিসিসিআই এর পরিচালক এবং রংপুর চেম্বারের সাবেক সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ মোছাদ্দেক হোসেন বাবলু, মিলেনিয়াম স্টার স্কুল এ্যান্ড কলেজের শিক্ষক রাশেদুল হাসান, ইন্টারন্যাশনাল গ্রামার স্কুল (আইজিএস) এর ৯ম শ্রেণীর ছাত্রী অন্যন্যা ভট্টাচার্য্য।

বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষনে উদ্বুদ্ধ হয়ে বাংলার দামাল ছেলেরা মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল বলেই আজ আমরা একটি স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ পেয়েছি। তাই তারা ১৯৭১ এবং মুক্তিযুদ্ধের সঠিক চেতনায় বাংলাদেশকে গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার মোহাঃ আবদুল আলীম মাহমুদ, বিপিএম বলেন, দেশ আজ মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ২০২১ ও ২০৪১ রূপকল্প নিয়ে দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশকে ভালবাসতে হলে আগে মুক্তিযুদ্ধকে বিশ্বাস করতে হবে। স্বাধীনতার চেতনা হৃদয়ে ধারণ করে জাতির পিতার আদর্শকে লালন করতে হবে, তবেই দেশপ্রেম জাগ্রত হবে। তিনি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় লাখো শহীদের যে ত্যাগ, সেই ত্যাগের মহিমায় তরুণ প্রজন্মকে উপযুক্ত নাগরিক হিসেবে গড়ে উঠার আহ্বান জানান।

এছাড়া একাত্তরে যারা যুদ্ধ করেছেন এবং শহীদ হয়েছেন তাদের আদর্শ নতুন করে সবার মাঝে ছড়িয়ে দেওয়ার পাশাপাশি নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে লালন ও ধারন করে দেশকে এগিয়ে নেয়ার আহ্বান জানান। পরিশেষে রংপুর চেম্বার সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে বিগত কয়েক বছর থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের যে সম্মাননা প্রদান করে আসছে সে জন্য তিনি রংপুর চেম্বার পরিচালনা পর্ষদকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

সভাপতির বক্তব্যে রংপুর চেম্বারের সভাপতি মোস্তফা সোহরাব চৌধুরী টিটু বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সবসময়, এই চেতনা কোনো খ-িত বিষয় নয়। এই চেতনা হৃদয়ে সবসময় ধারণ ও লালন করতে হবে। এই চেতনা তরুণ প্রজন্মের মাঝে ছড়িয়ে দিতে হবে। তিনি বলেন মহান মুক্তিযুদ্ধে এ দেশের ৩০ লাখ মানুষ প্রাণ দিয়েছেন। সম্ভ্রমহানি হয়েছে লাখো মা-বোনের। দেশান্তরী হয়ে প্রতিবেশী দেশে শরণার্থীর মানবেতর জীবনযাপন করেছে প্রায় এক কোটি মানুষ। উদ্বাস্তু হয়েছিল অসংখ্য মানুষ। অসংখ্য মানুষ পঙ্গু হয়ে আজো মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন। তাই তিনি দেশকে ভালোবাসার মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধাদের এই ঋণ পরিশোধ করার আহ্বান জানান।

উক্ত সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ রংপুর জেলা ইউনিট এর আওতাভূক্ত মুক্তিযোদ্ধাগণ, চেম্বার পরিচালনা পর্ষদের কর্মকর্তা ও পরিচালকবৃন্দ, সাবেক কর্মকর্তা ও পরিচালকবৃন্দ, বিভিন্ন বেসরকারি ব্যাংকের কর্মকর্তাবৃন্দ, বিভিন্ন ব্যবসায়ী সমিতির নেতৃবৃন্দ, সুধীজন, দি মিলেনিয়াম স্টারস স্কুল এ্যান্ড কলেজ, ইন্টারন্যাশনাল গ্রামার স্কুল (আইজিএস), কালেক্টরেট স্কুল এ্যান্ড কলেজ, পুলিশ লাইন্স স্কুল এ্যান্ড কলেজ, লায়ন্স স্কুল এ্যান্ড কলেজ ও আরসিসিআই পাবলিক স্কুল এ্যান্ড কলেজ এর শিক্ষক/শিক্ষিকা ও ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ এবং প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ। পরিশেষে আরসিসিআই পাবলিক স্কুল এ্যান্ড কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য