নীল গাই DDDদিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের রামসাগর জাতীয় উদ্যানে বিলুপ্ত প্রায় নীলগাইটি সংগী পেয়েও এক আনাকাংখিত ঘটনায় জীবন অবসান ঘটলো।

গত শনিবার সন্ধা ৭টার দিকে নীলগাই দু’টি খেলা করার সময় ছুটোছুটির একপর্যায়ে নারী নীলগাইটি রামসাগর জাতীয় উদ্যানের মিনি চিড়িয়াখানার নেটের সাথে ধাক্কা খেয়ে ছিটকে মাটিতে পড়ে যায়। এতে নীলগাইটি প্রচন্ড আঘাতপ্রাপ্ত হয়। ঘটনার পর পর কর্তৃপক্ষ চিকিৎসার ব্যবস্থা করে। কিন্তু নীলগাইটিকে বাঁচানো গেলো না। পরে ময়নাতদন্ত করা হয়।

এ ঘটনায় হাবিপ্রবি’র ভেটেরিনারী ও আ্যানিমেল সায়েন্স অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. এসএম হারুনুর রশিদকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অন্যরা হলেন, জেলা প্রাণী সম্পদ বিভাগের সার্জন ডাঃ কিবরিয়া এবং সহকারী বন সংরক্ষক মোস্তাফিজুর রহমান।

২০১৮ সালের ৪ সেপ্টেম্বর বিকালে ঠাকুরগাওয়ের রানীশংকৈল সীমান্তের কুলিক নদীর কাছে থেকে এলাকাবাসী উদ্ধার করে একটি দুর্লভ নারী নীল গাই। খবর পেয়ে স্থানীয় প্রশাসন নীল গাইটিকে উদ্ধারের পর দিনাজপুর সামাজিক বন বিভাগ কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করলে রামসাগর দীঘি জাতীয় উদ্যানে রাখা হয়। এখানে দীর্ঘ সাড়ে ৪মাস একাকিত্ব থাকার পর ৮ ফেব্রুয়ারী সংগী পায় বিলুপ্তপ্রায় এ নীলগাইটি।

২০১৯ সালের ২২ জানুয়ারি নওগাঁ জেলার মান্দা উপজেলার জোতবাজার এলাকায় ভারত থেকে আসা পুরুষ নীলগাইটি উদ্ধার করা হয়। পরে ৮ফেব্রুয়ারী সুষ্থ্য করে পুরুষ নীলগাইটিকেও রামসাগর জাতীয় উদ্যানের মিনি চিড়িয়াখানায় রাখা হয়। কিন্তু ৩৬দিন সংসারের পর ওই নারী নীলগাটিই মারা গেল। ফলে বাংলাদেশে বিলুপ্ত নীলগাইয়ের বংশ বৃদ্ধির সব স্বপ্ন ভঙ্গে হয়ে গেল। আর পুরুষ নীলগাইটি এবার আবার একাকী হয়ে গেল।

তাদের থাকার জন্যে বাসবাস উপযোগী এনক্লোজার (বেষ্টনী) করা হয়। সেখানেই দু`জনকে এক সঙ্গে রাখা হয়।

দিনাজপুর রামসাগর জাতীয় উদ্যানের তত্বাবধায়ক একেএম আবদুস সালাম তুহিন নারী নীলগাইটির মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে জানান, ইতোমধ্যে তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। ময়না তদন্তের উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি জানান, প্রচন্ড আঘাতে হার্টে রক্ত জমাট বেধেছিল।

জেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ শাহিনুর আলম জানান,এই অনাকাংখিত ঘটনায় আমরাও মর্মাহত। নীলগাইটির ময়না তদন্ত করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য