কৃষানী থেকে জাতীয় মহিলা ফুটবল দলে ঠাকুরগাঁওয়ের ৬ মেয়েমাসুদ রানা পলক, ঠাকুরগাওঃ ঠাকুরগাঁও জেলার রাণীশংকৈল উপজেলার রাঙ্গাটুঙ্গি মহিলা ফুটবল একাডেমির ছয় মেয়ে জায়গা করে নিয়েছে জাতীয় মহিলা ফুটবল দলে।

এদের মধ্যে অনুর্ধ ১৬ দলের সোহাগী কিসকু ও মুন্নী আক্তার আদূরী বাংলাদেশের হয়ে খেলছেন। আর অনুর্ধ ১৫ দলে বিথীকা কিসকু, কোহাতী কিসকু, কাকলী আক্তার, শাবনুর নিয়মিত অনুশীলন করছেন।

ঠাকুরগাঁওয়ের মেয়েরা বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব গোল্ডকাপ টুর্নামেন্টে কয়েকবার চ্যাম্পিয়ন হয়। জাতীয় পর্যায়ে গিয়েও দুইবার রানার্সআপ হয়েছে।

গ্রামের মেয়েরা মাঠে খেলা শুরু করতেই প্রথমে গ্রামের মানুষ অনেক আপত্তি করত।কেন মেয়েরা হাফপ্যান্ট পরে ফুটবল খেলবে। এখন তারা সেই অবস্থা থেকে উঠে এসেছে।তাদের খেলা দেখে বিভিন্ন গ্রামে মেয়েরা এখন ফুটবল খেলছে।

অনুর্ধ ১৬ দলের সোহাগী কিসকু বলেন, “নিজেদের অভাব অনটন আর সীমাবদ্ধতার কথা ভুলতে শিখেছি ফুটবল খেলায়।আমরা নিয়মিত অনুশীলন করতে চাই। আমাদের সরকারিভাবে খাবার, খেলাধুলার সরঞ্জামসহ একজন ভালো প্রশিক্ষক দরকার। যদি এই সব পাই তাহলে এখান থেকে অনেক ভালো খেলোয়ার তৈরি হবে।

পরিচালক তাজুল ইসলাম বলেন, এসব মেয়েরা এক সময় মাঠে কৃষানীর কাজ করতো। জমিতে ধান রোপন,নিরানি দেওয়া। বিভিন্ন কাজ করত তারা। সেখান থেকে আজ জাতীয় টিমে খেলছে। একটি স্বপ্ন “রাঙ্গাটুঙ্গি মহিলা ফুটবল একাডেমি” আজ বিভিন্ন গ্রাম থেকেও খেলতে আসছে মেয়েরা। জেলা থেকে বিভাগীয় পর্যায়ে, সেখান থেকে জাতীয় পর্যায়ে খেলছে। আমার মেয়েরা ২০১৪ সাল থেকে অনেক ভালো ফুটবল খেলে আসছে, এখন আমাদের টিমকে সারা বাংলাদেশ চেনে।

ঠাকুরগাঁও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান বাবু বলেন, রাঙ্গাটুঙ্গি মহিলা ফুটবল একাডেমির ছয় জন খেলোয়ার জাতীয় দলে খেলছে। ফুটবল ফেডারেশন থেকে দুই খেলোয়ার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত থেকে ১০ লাখ টাকা আর্থিক অনুদান পেয়েছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য