ফুলবাড়ীতে ১১ হাজার ভোল্টের তারের নিচে ভবন নির্মান, বিদুৎ স্পৃষ্টে শ্রমিক আহতফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে ১১ হাজার ভোল্ডের তারের নিচে বাড়ীর ছাঁদ ঢালাই করতে গিয়ে, বিদুৎ স্পর্শ হয়ে রাজু (২০) ও রেজাউল (২১) নামে দুই নির্মান শ্রমিক আহত হয়েছে। এদের মধ্যে রাজুর অবস্থা আশঙ্কা জনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

মঙ্গলবার সকাল ১১ টায় পৌর শহরের উত্তর সুজাপুর গ্রামে সনজন দাসের বাড়ীর ছাঁদ ঢালাই করার সময় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

বিদুৎ স্পর্শ হয়ে গুরুতর আহত হওয়া রাজু, বিরামপুর উপজেলার দক্ষিন সাহাবাজপুর গ্রামের আনিছুর রহমানের ছেলে ও রেজাউল পার্বতীপুর উপজেলার আমবাড়ী বাজারের নুর ইসলামের ছেলে। এই ঘটনায় বাড়ীর মালিক সনজন দাসকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ্দ করেছে স্থানীয় জনতা।

পুলিশের হাতে আটক থাকা বাড়ীর মালিক সনজন দাস, রাজশাহী কৃষি উন্নায়ন ব্যাংক বারাই হাট শাখা দিনাজপুর এর আইটি অপরেটর ও উপজেলা পুর্ব রাজারামপুর মাছুয়া পাড়া গ্রাামের রামা কান্তর ছেলে।

ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক মেডিকেল অফিসার ডাঃ এনায়েতুল্যা নাজিম বলেন, নির্মান শ্রমিক রাজুর অবস্থা আশঙ্কা জনক হওয়ায় তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতারে প্রেরন করা হয়েছে। আর রেজাউল ইসলামকে চিকিৎসা দিয়ে ছুটি দেয়া হয়েছে। তরে গুরুতর আহত হওয়া নির্মান শ্রমিক রাজুর মামা আব্দুল খালেক বলেন, রাজু এখন মৃত্যুর সাখে পাঞ্জা লড়ছে, রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকেরা তাকে জানিয়েছে, যে কোন সময় রাজুর অবস্থা আরো অবনতি হতে পারে।

এই বিষয়ে ফুলবাড়ী বিদুৎ সরবরাহ কেন্দ্রের আবাসীক প্রকৌশলী মাহবুবুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সেখানে ১১ হাজার ভোল্ডের তার রয়েছে, অথচ বাড়ীর মালিক তার সঙ্গে কোন প্রকার পরামর্শ বা যোগাযোগ না করে কিভাবে ছাঁদ ডালাইয়ের মত কাজ করতে গেল, তা তিনি নিজেও অবাক হয়েচেন। তিনি বলেন তার অফিসের মতামত না নিয়ে, পৌরসভা কতৃপক্ষ কিভাবে একটি বহুতল ভবন নির্মানের অনুমতি দিয়েছেন সে বিষয়ে তিনি প্রশ্ন তোলেন।

তবে ফুলবাড়ী পৌরসভার প্রকৌশলী লুৎফুল হুদা চৌধুরী দাবী করে বলেন বাড়ীর মালিক সনজন কুমার দাস নিজ দায়িত্বে বিদুৎ এর তার খুটি অপসারনের অঙ্গিকার করে বাড়ী নির্মানের অনুমতি নিয়েছে।

বিদুৎ এর তার খুট অপসারন বা বিদুৎ অফিসের সাথে যোগাযোগ না করে, ১১ হাজার ভোল্ডের বিদুৎ লাইনের নিচে কেন বাড়ীর ছাঁদ ঢালাই করছেন, বাড়ীর মালিক সনজন দাসকে জিজ্ঞাসা করলে, সনজন দাস বলেন বিষয়টি তার ভুল হয়েছে।

এই বিষয়ে ফুলবাড়ী থানার ওসি শেখ নাসিম হাবিব এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বাড়ীর মালিক সনজন দাসকে উত্তেজিত জনতা আটক করে থানায় সোপর্দ্দ করেছে, ক্ষতিগ্রস্থ পক্ষ অভিযোগ দিলে বাড়ীর মালিকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য