নাগেশ্বরীতে শিশুকে টয়লেটে ফেলে হত্যা ঘাতক মা আটককুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে ১৩ দিন বয়সের এক কন্যা শিশুকে টয়লেটে ফেলে হত্যা করেছে মা। বিলকিছ বেগম নামের ওই ঘাতক মাকে আটক করে থানায় নিয়েছে পুলিশ।

ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার বামনডাঙ্গা ইউনিয়নের লুছনি এলাকায়। স্থানীয়রা জানায় বিলকিছ বেগমের স্বামী বায়জিদ মিয়া টাঙ্গাইলে রিকশা চালান। তাদের একটি ৭ বছরের একটি মেয়ে সন্তান রয়েছে।

১৩ দিন আগে আরও একটি কন্যাশিশু জন্ম নেয়। বায়জিদ মিয়ার ছোট ভাইয়ের স্ত্রী শিশুটিক দেখতে না পেয়ে শিশুটি কোথায় জানতে চাইলে সে উল্টা-পাল্টা বলতে থাকে এবং নিজেও কোথায় আছে খোঁজার ভান করে।

পরে সন্দেহ হলে খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে বাড়ির পেছনের টয়লেটে গিয়ে দেখেন টয়লেটের ঢাকনা একটু সরানো। ঢাকনা তুলে দেখেন শিশুটি টয়লেটে প্রায় ডুবে আছে। পরে তুলে দেখেন ততক্ষণে শিশুটি মারা গেছে।

এতে বাড়ির লোকজনের আর্ত চিৎকারে স্থানীয়রা এসে ঘাতক মাকে আটক করে নাগেশ্বরী থানায় খবর দেয়। পুলিশ বিকেলে গিয়ে শিশুটিকে উদ্ধার করে ঘাতক মাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

এ ব্যাপারে নাগেশ্বরী থানার ওসি (তদন্ত) নয়ন দাস ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন খবর পেয়ে আমরা তাদের ঘর থেকে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে ঘাতক মাকে আটক করে থানায় নিয়ে এসেছি।

বিলকিছ বেগম অসুস্থ থাকায়, কেন এমন ঘটনা ঘটিয়েছে তা জানা যায়নি। সুস্থ হলে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আসল ঘটনা জানা যাবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য