তুরস্কে কুকুর লেলিয়ে দিয়ে নারী দিবসের কর্মসূচি পণ্ডের চেষ্টাআন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে তুরস্কের অন্যতম বড় শহর ইস্তানবুলে আয়োজিত এক মিছিলের কর্মসূচি পণ্ড করে দিয়েছে প্রেসিডেন্ট রিসেফ তাইয়্যেব এরদোয়ানের সরকার। কাতারভিত্তিক আল-জাজিরা খবর দিয়েছে, নারী দিবসের কর্মসূচিকে সামনে রেখে আচমকা ৮ মার্চ ইস্তানবুলে বিক্ষোভ-সমাবেশ নিষিদ্ধ করা হয়।

নিষেধ অমান্য করে হাজার হাজার নারী-পুরুষ বিক্ষোভে নামে। টিয়্যার গ্যাস ছুঁড়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করা হয়। এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সমবেতদের তাড়িয়ে দিতে তাদের পেছনে কুকুরও লেলিয়ে দেওয়া হয়েছিল। তবে রাজধানী আঙ্কারাতে পুলিশের উপস্থিতিতে বিক্ষোভে অংশ নিয়েছে কয়েকশো নারী।

আল জাজিরার প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, গত বছর নারী দিবসের কর্মসূচি শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হলেও কর্তৃপক্ষ এ বছরের সমাবেশের ঠিক আগ মুহূর্তে দমননীতির আশ্রয় নেয়। এরদোয়ানের সরকার ইস্তানবুল নগরীর সেন্ট্রাল এভিনিউয়ে সব ধরনের সমাবেশ নিষিদ্ধ ঘোষণা করে বিবৃতি দেয়। নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে নারীরা সেখানেই মিছিল নিয়ে সমবেত হতে শুরু করে।

সেখানকার তাকিজম স্কয়ার থেকে ইস্তিকাল অ্যাভিনিউয়ের দিকে যাওয়ার মুখে সমাবেশের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে পুলিশ। তারা নারীদের থামিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলে এক পর্যায়ে পরিস্থিতি সহিংসতায় মোড় নেওয়ার আশঙ্কা সৃষ্টি হয়। তৎক্ষণাৎ টিয়ার গ্যান ছুঁড়তে শুরু করে পুলিশ।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা গেছে, বিক্ষোভকারীদের তাড়া করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। তাদের লক্ষ্য করে টিয়ারগ্যাস ছোঁড়া হয়। পুলিশ কর্ডনের আড়াল থেকে আলকার নামের একজন বিক্ষোভকারী এএফপিকে বলেন, ‘এই হলো অপ্রিয় সত্য: এই রাষ্ট্রের বিধিবিধানটাই এমন যে তারা আমাদের ভয় পেতে বাধ্য হয়।’

এএফপি’র এক সংবাদদাতা জানান, ইস্তানবুলের প্রধান পথচারী সড়ক ইস্তিকাল এভিনিউয়ের প্রবেশ মুখে সমবেত হয় ওই নারীরা। অনেক নারীকে নানা রঙের পরচুলা ও মুখোশ পরা অবস্থায় দেখা যায়। বিক্ষোভকারীরা ‘আমাদেরকে স্তব্ধ করা যাবে না, আমরা ভীত নই, আমরা বাধা মানি না’ বলে শ্লোগান দেয়। তাদের ছত্রভঙ্গ করতে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা দমনমূলক নীতির আশ্রয় নেয়। কুকুর লেলিয়ে দিয়েও নারীদের ভয় দেখানো হয় সমবেতদের।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য